প্রযুক্তির মাধ্যমে নারী ক্ষমতায়ন

বর্তমান সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার যে স্বপ্ন, তার অর্ধেকটা নির্ভর করছে দেশের নারীদের ওপর। তাই প্রযুক্তির প্রতি নারীদের আগ্রহী করে তোলা ও এর মাধ্যমে তাদের ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করা জরুরি। তাছাড়া প্রযুক্তির মাধ্যমে নারীর ক্ষমতায়ন করা গেলে দেশ নারী-পুরুষ সমতার ক্ষেত্রে আরও এগিয়ে যাবে।

সম্প্রতি রাজধানীর ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইউআইইউ) ‘ডিজিটাল ব্যবস্থায় নারী- প্রযুক্তির মাধ্যমে ক্ষমতায়ন’ শীর্ষক কর্মশালায় বক্তারা এ কথা বলেন। দিনব্যাপী এ কর্মশালার আয়োজন করে উইমেন ইন ডিজিটাল, বাংলাদেশ (ডব্লিউআইডিবিডি) নামে একটি সংগঠন। ইউআইইউ ক্যারিয়ার কাউন্সিল এবং ইউআইইউ গ্রিন লিফ এতে সহযোগিতা করে।

সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা আছিয়া খালেদা নীলা কর্মশালার উদ্বোধন করেন। এসময় তিনি বলেন, প্রযুক্তিই আমাদের ভবিষ্যত্ এবং শিক্ষার্থীরা হলো দেশের ভবিষ্যত্। তাই সবচেয়ে ভালো হয়- আমরা যদি এই শিক্ষার্থীদের, বিশেষ করে নারী শিক্ষার্থীদের প্রযুক্তির ব্যাপারে আগ্রহী করে তুলতে পারি; ডিজিটাল বিশ্বের অমিত সম্ভাবনার কথা তাদেরকে জানাতে পারি। এক্ষেত্রে নারীর ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করতে পারলে আমরা নারী-পুরুষ সমতা অর্জনের পথেও আরেক ধাপ এগিয়ে যাবো। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিসিসি’র পরিচালক মনজুরুল হক খান।

কর্মশালায় এইচটিএমএল এন্ড সিএসএস কন্টেন্ট রাইটিং, গ্রাফিক ডিজাইন, থ্রিডি অ্যানিমেশন, কোয়ালিটি অ্যাসুর্যান্স, ডিজিটাল মার্কেটিং এবং ডিজিটাল প্রডাকশনসহ বিভিন্ন বিষয়ে শিক্ষার্থীদের ধারণা দেয়া হয়। কন্টেন্ট রাইটিং বিষয়ক মূল প্রবন্ধের উপস্থাপক ও দ্য এশিয়ান এইজের স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট ফখরুদ্দিন মেহেদী বলেন, সার্চ জায়ান্ট গুগলের অর্জিত মূলধনের পরিমাণ প্রায় ৩১৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। গুগলের এই পরিমাণ অর্থ আয়ের মূল উত্স তাদের কন্টেন্ট। দেশের মেধাবী ও দক্ষ তরুণদের কন্টেন্ট রাইটিংয়ের বিষয়ে আগ্রহী করে তুলতে পারলে আগামীতে এই খাতের মোট আয় রেমিট্যান্সকেও ছাড়িয়ে যাবে