প্রতিবন্ধিতা ও দুর্যোগ ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা সম্মেলন রোল মডেল

বিশিষ্ট শিশু মনোবিজ্ঞানী ও গ্লোবাল অটিজম পাবলিক হেলথ ইনিশিয়েটিভ ইন বাংলাদেশের জাতীয় উপদেষ্টা কমিটির চেয়ারপারসন সায়মা হোসেন পুতুল বলেছেন, ঢাকা ঘোষণার মাধ্যমে ‘প্রতিবন্ধিতা ও দুর্যোগ ঝুঁকি ব্যবস্থানা বিষয়ক আর্ন্তজাতিক সম্মেলন’ বিশ্বের কাছে বাংলাদেশ রোল মডেল হয়ে থাকবে।

‘প্রতিবন্ধিতা ও দুর্যোগ ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা বিষয়ক তিনদিনের আর্ন্তজাতিক সম্মেলনের’ সমাপনী দিনে ভবিষ্যৎ করণীয় নির্ধারণী বক্তব্যে পুতুল এসব কথা বলেন। সম্মেলন শনিবার শুরু হয়ে শেষ হয় সোমবার (১৪ ডিসেম্বর)।

বাংলাদেশের অনেক ভবনেই প্রতিবন্ধীদের চলাফেরার সুবিধা রাখা হয়েছে। নতুন ভবেনগুলোতেও এটি রাখার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। যা বিশ্বের অনেক দেশেই নেই। আমরাই প্রথম এধরণের উদ্যোগ নিয়েছি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কন্যা সায়মা হোসেন পুতুল আরো বলেন, এই সম্মেলনের মাধ্যমে সর্বসম্মতিক্রমে ঢাকা ঘোষণা ভবিষ্যতে অনেক গুরুত্ব বহন করবে। সম্মেলনে অনেক গুরুত্বপূণ বিষয় আলোচনা হয়েছে। যা আমাদের দেশের প্রতিবন্ধীদের দুর্যোগ ঝূঁকি মোকাবেলায় সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।

প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক সর্ম্পক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী, বিশেষ অতিথি ড. জেরী ভেলাস্কুয়েজ, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব নাসিমা বেগম এনডিসি, ভারতের হরিয়ানা রাজ্যের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রী শায়ইন সিং, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব তারিক উল ইসলাম।

শনিবার ১২ডিসেম্বর ‘ঢাকা কনফারেন্স অন ডিসঅ্যাবিলিটি অ্যান্ড ডিজাস্টার রিস্ক ম্যানেজমেন্ট’ শীর্ষক সম্মেলনের উদ্ধোধন করেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী মোফাজ্জেল হোসেন চৌধুরী মায়া।

জাপানের সেন্দাইয়ে দুর্যোগ ঝুঁকি বিষয়ক জাতিসংঘের তৃতীয় সম্মেলনে গত ১৮ মার্চ ‘সেন্দাই ফ্রেমওয়ার্ক ফর ডিজাস্টার রিস্ক রিডাকশন ২০১৫-২০৩০’ গৃহীত হওয়ার পর এ বিষয়ে এটাই প্রথম আন্তর্জাতিক সম্মেলন।

দুর্যোগের ঝুঁকি ব্যবস্থাপনায় অক্ষমতা ও করণীয় নিয়ে মৌলিক বিষয়গুলো আলোচনা ও করণীয় নির্ধারণ করতেই সম্মেলনে আয়োজন করা হয়।