বাংলাদেশকে ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ দেবে ত্রিপুরা

ভারতের ত্রিপুরা ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবসের দিন থেকে বাংলাদেশকে ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ জন্য ভারতীয় অংশে পুরোদমে বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন নির্মাণের কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান কে ই সি ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেডের কর্মকতার্রা। অবশ্য বাংলাদেশ অংশে ইতোমধ্যেই কাজ সমাপ্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, আগরতলার অদূরে সূর্য্যমনি নগর পাওয়ার গ্রিড থেকে কাঞ্চনমালা, দক্ষিণ চাম্পামুড়া, পুরাতন রাজনগর, কৈয়ারডেপা ও কোনাবন হয়ে বাংলাদেশের কুমিল্লায় ৪০০ কেভি ডাবল সার্কিট লাইন প্রবেশ করবে। বাংলাদেশ-ত্রিপুরা বিদ্যুৎ লাইনের মোট দৈর্ঘ্য ৬৪ কিলোমিটার। এরমধ্যে ভারতীয় অংশে অর্থাৎ, ত্রিপুরায় পড়েছে ১৭ কিলোমিটার। ভারতীয় অংশের বিদ্যুৎ লাইনে ৬৫টি টাওয়ার রয়েছে। ইতোমধ্যেই ১০ কিলোমিটার লাইনে ৪৫টি টাওয়ারের নির্মাণ ও ওয়ারিংয়ের কাজ শেষ হয়েছে। বাকি টাওয়ারগুলোর নির্মাণ কাজ আগামী সপ্তাহের মধ্যেই শেষ হচ্ছে।

এদিকে, সূর্য্যমনিনগর-কুমিল্লা বিদ্যুৎ লাইনের বাংলাদেশ অংশের ৪৭ কিলোমিটারে টাওয়ার নির্মাণ, ওয়ারিং ও কুমিল্লায় ৪০০ কেভি ডাবল সার্কিট লাইন নির্মাণ শেষ করেছে পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ।

জানা যায়, উত্তর-পূর্ব ভারতের সর্ববৃহৎ প্রাকৃতিক গ্যাসভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্প ও টি পি সি পালাটানা প্রকল্পের ভারী যন্ত্রপাতি বাংলাদেশের উপর দিয়ে ত্রিপুরায় নেওয়ার অনুমতি দেওয়ার কারণে কৃতজ্ঞতা হিসেবে বাংলাদেশকে বিদ্যুৎ দিচ্ছে ত্রিপুরা সরকার। সে হিসেবে ত্রিপুরার গোমতী জেলার ও টি পি সি পালটোলা বিদ্যুৎ প্রকল্প থেকে রাজ্যের প্রাপ্য শেয়ার থেকে ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ ব‍াংলাদেশে রপ্তানি করা হবে।

সঞ্চালন নির্মাণ প্রতিষ্ঠানের সাইট ম্যানেজার ডিপি শুক্লা বলেন, আগামী একসপ্তাহের মধ্যেই বিদ্যুৎ লাইন নির্মাণের কাজ শেষ হবে। এরপর ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে বাংলাদেশে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হবে।

এ প্রসঙ্গে বিদ্যুৎ সচিব মনোয়ার ইসলাম এরআগে জানান, ডিসেম্বরেই ত্রিপুরা থেকে ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে যোগ হবে। ত্রিপুরার পালাটানা বিদ্যুৎকেন্দ্রের উৎপাদনপুরোদমে শুরু হলে এখান থেকে আরও ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি করা হবে।