বিশ্বব্যাংক বিদ্যুৎ খাতে আরও প্রায় ১৮ কোটি ডলার দেবে

বিশ্বব্যাংক সম্প্রতি বাংলাদেশকে কম দামে নির্ভরযোগ্য উপায়ে বিদ্যুৎ সরবরাহ বাড়ানোর জন্য আরও ১৭ কোটি ৭০ লাখ মার্কিন ডলারের ঋণ প্রদানের ঘোষণা দিয়েছে। এই অর্থ স্থানীয় মুদ্রায় প্রায় ১ হাজার ৪১৬ কোটি টাকার সমান (প্রতি ডলার ৮০ টাকা হিসাবে)।
এই অর্থ দিয়ে ঢাকার অদূরে সিদ্ধিরগঞ্জে ৩৩৫ মেগাওয়াট কম্বাইন্ড সাইকেল পাওয়ার প্ল্যান্টের নির্মাণকাজ শেষ করা হবে। পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তিতে কম গ্যাস ব্যবহার করে অধিক পরিমাণে বিদ্যুৎ উৎপাদিত হবে এই কেন্দ্রে। এতে বছরে ২৪৯ কোটি কিলোওয়াট উৎপাদিত হবে, যা জাতীয় গ্রিডে সরবরাহকৃত মোট বিদ্যুতের ৬ শতাংশ।
বাংলাদেশে বিশ্বব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত কান্ট্রি ডিরেক্টর মার্টিন রামা এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘বিদ্যুৎ উৎপাদনে সক্ষমতা বাড়লেও বাংলাদেশকে এখনো পিক ডিমান্ড বা সর্বোচ্চ চাহিদার সময়ে সমস্যায় পড়তে হয়। অপর্যাপ্ত বিদ্যুৎ সরবরাহের কারণে এ দেশে পরিবার পর্যায়ে যেমন দুর্ভোগ দেখা দেয়, তেমনি প্রতিযোগিতাশীলতা এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিও বাধাগ্রস্ত হয়।’
মার্টিন রামা আরও বলেন, বিশ্বব্যাংকের দেওয়া এই অতিরিক্ত অর্থায়নের ফলে বাংলাদেশের নতুন বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষমতা এবং গ্যাস ব্যবহারেও দক্ষতা বৃদ্ধি পাবে।
বিশ্বব্যাংক ২০০৮ সালে বাংলাদেশকে সিদ্ধিরগঞ্জে ৩০০ মেগাওয়াট গ্যাস টারবাইন পাওয়ার প্ল্যান্ট বা বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের জন্য ৩৫ কোটি ডলার দেয়। পরবর্তী সময়ে সরকার এই কেন্দ্রকে ৩৩৫ মেগাওয়াট উৎপাদন ক্ষমতাসম্পন্ন জ্বালানি-সাশ্রয়ী বিদ্যুৎকেন্দ্রে রূপান্তরের সিদ্ধান্ত নেয়। সরকারের এই সিদ্ধান্ত তথা পরিকল্পনা বাস্তবায়নে বিশ্বব্যাংকের অতিরিক্ত ঋণ বিদ্যুৎকেন্দ্রটির নির্মাণকাজ শেষ করতে সহায়ক হবে। আগামী বছরেই বিদ্যুৎকেন্দ্রটির বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু হবে বলে আশা করা হচ্ছে।
বিশ্বব্যাংকের ঋণ প্রদানকারী বিভাগ ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট এজেন্সির (আইডিএ) মাধ্যমে ৩৮ বছর মেয়াদে নমনীয় শর্তে এই ঋণ দেওয়া হবে। বিজ্ঞপ্তি।