বাংলাদেশের পাশে ৩২ উন্নয়ন সহযোগী

বিশ্বের বিভিন্ন উন্নয়ন সহযোগী দেশ ও সংস্থাগুলোর সর্বোচ্চ সহায়তার আশ্বাস পাওয়ার মধ্য দিয়ে শেষ হলো দুই দিনব্যাপী বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ফোরামের সম্মেলন। সরকারি উদ্যোগে আয়োজিত এই সম্মেলনে বাংলাদেশের সামগ্রিক উন্নয়নে অর্থনৈতিক, সামাজিক, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, অবকাঠামো, প্রযুক্তি, বিদ্যুৎ-গ্যাস, জ্বালানি ও যোগাযোগ খাতে সর্বোচ্চ সহায়তার আশ্বাস দিয়েছে উন্নয়ন সহযোগী ৩২টি দেশ ও সংস্থা। বিশেষ করে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনে সব ধরনের সহযোগিতারও প্রতিশ্র“তি দিয়েছেন উন্নয়ন সহযোগীরা। রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে গতকাল শেষ হওয়া দুই দিনব্যাপী এই সম্মেলনের সঙ্গে পর্দা নামল সরকারের উন্নয়ন মেলার। সম্মেলনে গতকাল শেষ দিনের আলোচনায় দেশের সামষ্টিক অর্থনীতি, কৃষি, শিল্প-বাণিজ্য, বৈদেশিক বাণিজ্য, বাজেট বাস্তবায়ন সরকারের নেওয়া মেগা উন্নয়ন প্রকল্পের বাস্তবায়নের অগ্রগতি তুলে ধরা হয় উন্নয়ন সহযোগীদের কাছে। সবগুলো উন্নয়ন সহযোগী বাংলাদেশকে নিয়ে তাদের উন্নয়ন পরিকল্পনা পৃথক পৃথকভাবে তুলে ধরেন। সরকারের নেওয়া প্রেক্ষিত পরিকল্পনা-২০২১ বাস্তবায়নের মাধ্যমে বাংলাদেশ নির্দিষ্ট সময়সীমার আগেই মধ্য আয়ের দেশে পরিণত হবে বলে মনে করে উন্নয়ন সহযোগীরা। পাশাপাশি সব ধরনের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে শতভাগ স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার দাবিও তাদের। বিশেষ করে প্রতিবছর সরকারের বার্ষিক উন্নয়ন কমসূচির ব্যয়ে স্বচ্ছতা এবং এর মানোন্নয়নের তাগিদ দিয়েছে উন্নয়ন সহযোগীরা। অন্যদিকে সরকারের নেওয়া দ্রুত বাস্তবায়নযোগ্য মেগা উন্নয়ন প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নে সতর্কতা অবলম্বন করতে বলা হয়েছে। সম্মেলনে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সিনিয়র সচিব মোহাম্মদ মেজবাউদ্দিন বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হতে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৮ থেকে ১০ শতাংশ অর্জন করতে হবে। আর এ জন্য প্রতি বছর অবকাঠামো খাতে ৮ থেকে ১০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়াগ প্রয়োজন। এ বিষয়গুলোও উন্নয়ন-সহযোগীদের সামনে তুলে ধরা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশের সামগ্রিক উন্নয়নে সর্বোচ্চ সহায়তার আশ্বাস দিয়েছে উন্নয়ন সহযোগীরা। বৈঠকের একটি সূত্র জানায়, শুধু উন্নয়নই নয়, এর পাশাপাশি আর্থিক খাতে সুশাসন প্রতিষ্ঠার তাগিদ দিয়েছে উন্নয়ন সহযোগীরা। বিশেষ করে দেশের ব্যাংক খাতে সুশাসন ফিরিয়ে আনা এবং এ খাতের অনিয়ম দুর্নীতি শূন্যের কোটায় নামিয়ে আনার তাগিদ দেওয়া হয়েছে। সম্মেলনের শেষ দিনে দারিদ্র্য বিমোচন, সামাজিক নিরাপত্তা, লিঙ্গ বৈষম্যসহ চারটি সেশন পরিচালিত হয়। এতে সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশের দারিদ্র্য বিমোচনে ভ‚য়সী প্রশংসা করেন উন্নয়ন সহযোগীরা।