অর্থনৈতিক অঞ্চলে গাড়ি আমদানিতে করমুক্ত সুবিধা

অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগ করলে গাড়ি আমদানিতে শর্ত সাপেক্ষে করমুক্ত সুবিধা প্রদান করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)।

তবে এ ক্ষেত্রে অর্থনৈতিক অঞ্চলে অন্তত ৫০ লাখ মার্কিন ডলার বিনিয়োগ এবং ২৫০ মানুষের কর্ম-সংস্থান হতে পারে এমন শিল্প স্থাপন করতে হবে। চলতি সপ্তাহে এ সংক্রান্ত এসআরও ইস্যু করা হয়েছে। এনবিআরের একটি উর্ধ্বতন সূত্র রাইজিংবিডিকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

জারিকৃত এসআরও অনুসারে শিল্প স্থাপন করা হলে ওই বিনিয়োগকারী দুটি গাড়ির ক্ষেত্রে করমুক্ত সুবিধা পাবেন। এ সুবিধার আওতায় গাড়ি আমদানিতে বিনিয়োগকারীকে কোন শুল্ক, সম্পূরক শুল্ক, রেগুলেটরি ফি ও মূল্য সংযোজন কর হতে অব্যাহতি দেওয়া হবে।

এর আগে অর্থনৈতিক অঞ্চলে অন্তুত এক কোটি মার্কিন ডলার কিংবা এর সমপরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ এবং পাঁচশ’ লোকের কর্মস্থাংস্থান হয় এমন শিল্পস্থাপনে করমুক্ত এ সুবিধা দেওয়া হয়েছিল।

সূত্র আরো জানায়, বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বিইজেডএ) অর্থনৈতিক অঞ্চলের জন্য সর্বোচ্চ ২০০০ সিসির সিডান কার বা ছোট বাস বা পিআপ ভ্যান বা ডাবল কেবিনের পিক আপের ক্ষেত্রে ওই সুবিধা পাবে। তবে কেবলমাত্র দুটি গাড়ির ক্ষেত্রে এ করমুক্ত সুবিধা পাওয়া যাবে। এ ক্ষেত্রে আরো শর্ত আছে যে গাড়ি আমদানির পাঁচ বছরের মধ্যে এর মালিকানা হস্তান্তর করা যাবে না।

বর্তমানে সরকারি ও বেসকারিভাবে অনুমোদিত মোট ৩৭টি অর্থনৈতিক অঞ্চল রয়েছে। যা আগামি ১৫ বছরে ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল করার পরিকল্পনা রয়েছে।

সরকারি অনুমোদিত অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলো হলো- সিরাজগঞ্জ অর্থনৈতিক অঞ্চল (বঙ্গবন্ধু সেতু সংলগ্ন স্থান), বাগেরহাট অর্থনৈতিক অঞ্চল, চট্টগ্রামের মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চল, আনোয়ারা (গহিরা) অর্থনৈতিক অঞ্চল চট্টগ্রাম, শ্রীহট্ট অর্থনৈতিক অঞ্চল মৌলভীবাজার, গাজীপুরের শ্রীপুর অর্থনৈতিক অঞ্চল (জাপানিজ ইকনোমিক জোন), স্যাবরাং ট্রুজিম বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল, বরিশালের আগৈলঝারা অর্থনৈতিক অঞ্চল, আনোয়ারা অর্থনৈতিক অঞ্চল-২, কেরানীগঞ্জে ঢাকা আইটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল, জামালপুর অর্থনৈতিক অঞ্চল, নারায়ণগঞ্জ অর্থনৈতিক অঞ্চল, নারায়ণগঞ্জ অর্থনৈতিক অঞ্চল-২।

ভোলা অর্থনৈতিক অঞ্চল, আশুগঞ্জ অর্থনৈতিক অঞ্চল, কুষ্টিয়া অর্থনৈতিক অঞ্চল, পঞ্চগড় অর্থনৈতিক অঞ্চল, নীলফামারী অর্থনৈতিক অঞ্চল, নরসিংদী অর্থনৈতিক অঞ্চল, মানিকগঞ্জ অর্থনৈতিক অঞ্চল, ঢাকার দোহারের অর্থনৈতিক অঞ্চল, হবিগঞ্জ অর্থনৈতিক অঞ্চল, শরীয়তপুর অর্থনৈতিক অঞ্চল, জালিয়ারদ্বীপ অর্থনৈতিক অঞ্চল টেকনাফ, নাটোর অর্থনৈতিক অঞ্চল, কক্সবাজারে মহেশখালী অর্থনৈতিক অঞ্চল, মহেশখালী অর্থনৈতিক অঞ্চল-২ ও ৩, কক্সবাজার ফ্রি ট্রেড জোন (মহেশখালী) এবং শরীয়তপুর অর্থনৈতিক অঞ্চল-২।

অন্যদিকে বেসকারি অর্থনৈতিক অঞ্চগুলো হলো- মেঘনা ইন্ডাস্ট্রিয়াল অর্থনৈতিক অঞ্চল, মেঘনা অর্থনৈতিক অঞ্চল, ফমকম বেসরকারি অর্থনৈতিক অঞ্চল, এ. কে. খান বেসরকারি অর্থনৈতিক অঞ্চল, আব্দুল মোনেম অর্থনৈতিক অঞ্চল, কুমিল্লা অর্থনৈতিক অঞ্চল ও গার্মেন্টস শিল্প পার্ক।