‘২০১৯ সালে উত্তরা-মতিঝিল মেট্রোরেল নির্মাণ সম্পন্ন’

সরকার রাজধানীর দুঃসহ যানজট নিরসনে ২০২৪ সালের পরিবর্তে ২০১৯ সালের মধ্যেই ‘এমআরটি লাইন-৬’ (মেট্রোরেল)-এর প্রথম পর্যায়ের নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করার জন্য কাজ করছে। আজ মন্ত্রিসভায় পেশ করা বার্ষিক প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়। প্রথম পর্যায়ে মেট্রোরেল রাজধানীর উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত নির্মাণ করা হবে উল্লেখ করে প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রকল্পটি নির্ধারিত সময়ের ৫ বছর আগেই শেষ করার লক্ষ্যে কাজ চলছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আজ সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার সাপ্তাহিক বৈঠকে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ২০১৪-১৫ অর্থবছরের বার্ষিক প্রতিবেদন জমা দেয়। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব এম. মোশাররফ হোসেন ভুঁইয়া সাংবাদিকদের বলেন, প্রতিবেদনে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সাফল্য ও কর্মকা- তথা দেশের সার্বিক আর্থ-সামাজিক অগ্রগতি মন্ত্রিসভার কাছে গুরুত্বসহকারে উপস্থাপন করা হয়েছে।

প্রতিবেদন অনুসারে, দেশের মাথাপিছু আয় আগের বছরের তুলনায় বেড়ে ২০১৪-’১৫ অর্থবছরে হয়েছে ১ হাজার ৩১৪ মার্কিন ডলার। এর আগের বছর মাথাপিছু আয় ছিল ১ হাজার ১৯০ ডলার। একই সময়ে দেশের রফতানি ৩ দশমিক ৩৫ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে পণ্যের বহুমুখীকরণ, সরকারি পদক্ষেপ এবং রফতানিকারকদের কঠোর পরিশ্রমের বিষয়টিও উল্লেখ করা হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, দেশের বার্ষিক রাজস্ব আয় বৃদ্ধি পেয়ে হয়েছে ১ লাখ ৩৬ হাজার ৫৭৯ দশমিক ৫০ কোটি টাকা। যা নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১ হাজার ৫৫১ দশমিক ৫০ কোটি টাকা বেশি। দেশের রেমিট্যান্সের হার ৭ দশমিক ৬৫ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে হয়েছে প্রায় ১৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৪-’১৫ অর্থবছরে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ দাঁড়িয়েছে ২৫ দশমিক ০২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা আগের বছরের তুলনায় ১৬ দশমিক ৩৩ শতাংশ বেশি। এই সময়ে মার্কিন ডলারের বিপরীতে বাংলাদেশী টাকাও ছিল স্থিতিশীল।

২০১৪-’১৫ অর্থবছরের শেষে সাধারণ মুদ্রাস্ফীতি ছিল ৬ দশমিক ২৫ শতাংশ। ২০১৩-’১৪ অর্থবছরের শেষে এই হার ছিল ৬ দশমিক ৯৭ শতাংশ। বাসস।