বাংলাদেশে বিনিয়োগ আকর্ষণে লন্ডনে রোড শো

বাংলাদেশে বিনিয়োগের সম্ভাবনা ও সুযোগসুবিধা তুলে ধরতে ১০ ও ১১ সেপ্টেম্বর লন্ডনে রোড শো অনুষ্ঠিত হবে। লন্ডনের অভিজাত বাণিজ্যিক এলাকা ক্যানারি ওয়ার্ফের ইস্ট উইন্টার গার্ডেনের একটি মিলনায়তনে হবে এই রোড শো।

যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার এম এ হান্নান গতকাল বুধবার লন্ডনে এক সংবাদ সম্মেলনে এ সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরেন।

এম এ হান্নান বলেন, বাংলাদেশের বিভিন্ন খাতে ইউরোপীয় বিনিয়োগকারীদের উৎসাহিত করাই এই রোড শোর লক্ষ্য। অব্যাহত স্থিতিশীল প্রবৃদ্ধি ও উন্নত জীবনমানের আকাঙ্ক্ষা বাংলাদেশে জ্বালানি, যোগাযোগ, প্রযুক্তি ও সেবা খাতে বাড়তি চাহিদা তৈরি করেছে। এসব চাহিদা মোকাবিলায় বাংলাদেশ সরকার বিদেশি বিনিয়োগকে স্বাগত জানাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশে এই প্রথম কোনো সরকার সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য নির্ধারণ করে সেখানে পৌঁছানোর চেষ্টা করছে। যার লক্ষ্য ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়া ও ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি মধ্য আয়ের দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা। এসব লক্ষ্য পূরণে বেসরকারি ও বিদেশি বিনিয়োগের কোনো বিকল্প নেই উল্লেখ করে হাইকমিশনার বলেন, বিনিয়োগের জন্য সরকার সব রকম সুযোগসুবিধা নিশ্চিত করার উদ্যোগ নিয়েছে।

একটি প্রামাণ্যচিত্রের মাধ্যমে ২০৩০ সাল পর্যন্ত সরকারের বিভিন্ন লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য তুলে ধরা হয় সংবাদ সম্মেলনে। যার মধ্যে আছে পারমাণবিক জ্বালানি নির্ভর দেশ গড়া, গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণ, অবকাঠামোর ব্যাপক উন্নয়নের পাশাপাশি বিশ্বের ৩০তম বড় অর্থনীতির দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হওয়া।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, বাংলাদেশের রপ্তানি খাতের তৃতীয় বৃহত্তম গন্তব্য যুক্তরাজ্য। আর বাংলাদেশে রেমিট্যান্স প্রবাহের ক্ষেত্রে দেশটির অবস্থান ষষ্ঠ।

বাংলাদেশ বিনিয়োগ বোর্ডের আয়োজনে এই রোড শোতে প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানিবিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী, বিনিয়োগ বোর্ডের নির্বাহী চেয়ারম্যান এস এ সামাদ ও বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আতিউর রহমানসহ প্রায় ৭০ জন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা উপস্থিত থাকবেন বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়েছে। যুক্তরাজ্য ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে সম্ভাব্য বিনিয়োগকারীরা রোড শোতে অংশ নেবেন বলেও জানান হাইকমিশনার।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত ডেপুটি হাইকমিশনার খন্দকার মোহাম্মদ তালহা, কমার্শিয়াল কনস্যুলার শরিফা খান ও প্রেস মিনিস্টার নাদিম কাদির।