শতভাগ এডিপি বাস্তবায়নে গুচ্ছ নির্দেশনা

চলতি ২০১৫-১৬ অর্থবছরে শতভাগ বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়নের জন্য সব মন্ত্রণালয়ের সচিবদের একগুচ্ছ নির্দেশনা দিয়েছে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়। বাস্তবায়ন হার ভালো করার জন্য গতিহীন প্রকল্পগুলো এডিপি থেকে বাদ দেওয়াসহ প্রকল্প গ্রহণের ক্ষেত্রে সম্ভাব্য সমস্যা চিহ্নিত করে তা সমাধান এবং প্রকল্প পরিচালক (পিডি) নিয়োগ প্রক্রিয়ায় পরিবর্তন আনার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর শেরে বাংলানগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে প্রকল্প বাস্তবায়ন কৌশল নিয়ে সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সচিবদের সঙ্গে বৈঠকে এসব নির্দেশনা দেন পরিকল্পনামন্ত্রী।

১ জুলাই থেকে নতুন অর্থবছর শুরুর পর এই প্রথম বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিবদের সঙ্গে এডিপি বাস্তবায়নে গতি আনতে বৈঠকে বসেন পরিকল্পনামন্ত্রী। দায়িত্ব নেওয়ার পর গত অর্থবছরও দফায় দফায় সচিব ও পিডিদের সঙ্গে বৈঠক করেছিলেন তিনি। কিন্তু বছর শেষে দেখা গেছে, সংশোধিত এডিপি বাস্তবায়ন হয়েছে গত চার বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন। পরিকল্পনা কমিশনের কর্মকর্তারা বলছেন, এডিপি বাস্তবায়নে যেসব সমস্যা, এগুলো নতুন কিছু নয়। স্বাধীনতার পর থেকেই এসব সমস্যার কথা বলা হচ্ছে। কিন্তু কোনো সরকারই কার্যকর কোনো পদক্ষেপ নিতে পারেনি।

গতকালের বৈঠক শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, প্রকল্প পরিচালকরা (পিডি) হলো প্রকল্পের প্রাণ। তাঁরা আন্তরিক হলে প্রকল্প বাস্তবায়ন ত্বরান্বিত হবে। এখন থেকে নিজ নিজ মন্ত্রণালয় নতুন পিডি নিয়োগ দেবে সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে। ওই মন্ত্রণালয়ের সচিব এ সাক্ষাৎকার গ্রহণ করবেন। প্রকল্প পরিচালক হিসেবে নিয়োগের জন্য প্রকল্প বিষয় সংক্রান্ত অভিজ্ঞতা, চাকরির বয়স, ওই সংক্রান্ত শিক্ষাগত যোগ্যতা ইত্যাদি বিষয় বিবেচনা করা হবে।

একই সঙ্গে যাঁরা পিডি হিসেবে বর্তমানে নিযুক্ত আছেন, তাঁদের যোগ্যতাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এ জন্য শিগগিরই প্রয়োজনীয় গাইডলাইন তৈরি করা হবে বলে জানান মন্ত্রী।