যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে বাংলাদেশ

তৈরি পোশাক রফতানিতে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে বাংলাদেশ। একক দেশ হিসেবে বাংলাদেশের তৈরি পোশাকের সবচেয়ে বড় বাজার হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। ২০১৪ সালের পুরোটা সময় বাংলাদেশ থেকে দেশটির পোশাক আমদানি ছিল নি¤œমুখী। চলতি বছর থেকে এই ধারা পরিবর্তন হতে থাকে। ২০১৫ সালের প্রথম ৬ মাসে যুক্তরাষ্ট্রে তৈরি পোশাক থেকে রফতানি আয় বেড়েছে প্রায় ৯ দশমিক ৭ শতাংশ। পরিসংখ্যান অনুযায়ী চলতি বছরের প্রথম দিকে যুক্তরাষ্ট্র পোশাক আমদানি করেছে ২৮০ কোটি ৮৮ লাখ ২১ হাজার ডলারের। গত বছর ঠিক একই সময় ছিল ২৫৬ কোটি ৩ লাখ ৫৭ হাজার ডলার। সেই হিসাব অনুযায়ী জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত তৈরি পোশাক রফতানি থেকে আয় হয়েছে ২৪ কোটি ৮৪ লাখ ৬৪ হাজার ডলার। সংশ্লিষ্ট মনে করছেন, উত্তর আমেরিকার ক্রেতা জোট অ্যালায়েন্সের পোশাক কারখানা পরির্দশনের পর বাংলাদেশের ক্রেতাদের প্রতি আস্থা ফিরতে শুরু করেছে ।
পরিসংখ্যান অনুযায়ী যুক্তরাষ্ট্র থেকে রফতানির আয়ের প্রবৃদ্ধি ছিল ঋণাত্মক। অর্থাৎ ৬ দশমিক ৮ শতাংশ। একই বছরের মার্চ থেকে প্রবৃদ্ধি ধারায় ফিরতে থাকে। যে কারণে দেখা যায় এপ্রিল পর্যন্ত প্রবৃদ্ধি হয় ৭ দশমিক ২৪ শতাংশ । চলতি বছরের ৬ মাসে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৭ দশমিক ২৪ শতাংশ । আর প্রথম ৬ মাসে রফতানি আয়ের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৯ দশমিক ৭ শতাংশ। জানা গেছে, আয়ের পাশাপাশি পরিমাণের দিক থেকেও যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশ থেকে পোশাক রফতানি বেড়েছে। তবে রফতানি বাড়লেও, যুক্তরাষ্ট্রের বাজার দখলে তেমন অগ্রগতি হচ্ছে না। ২০০০ সাল থেকে ২০১৫ সালের এপ্রিল পর্যন্ত বাজার দখলে একই অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। এখন পোশাক রফতানিতে ভিয়েতনাম বাংলাদেশের অন্যতম প্রতিযোগী হয়ে উঠেছে। এ সময়ে প্রতিযোগী দেশ হিসেবে ভিয়েতনামের পাশাপাশি ইন্দোনেশিয়া ও হুন্ডুরাসের বাজার হিস্যায় গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন এসেছে।