বাংলাদেশ এখন নিম্ন-মধ্য আয়ের দেশের কাতারে: বিশ্ব ব্যাংক

বাংলাদেশকে নিম্ন আয়ের দেশ থেকে নিম্ন-মধ্য আয়ের দেশের কাতারে এনেছে বিশ্ব ব্যাংক।

মাথাপিছু আয়ের ভিত্তিতে নিজেদের সূচকে বাংলাদেশকে এক ধাপ এগিয়ে আনা হয়েছে বলে বুধবার বৈশ্বিক সংস্থাটির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

বাংলাদেশের সঙ্গে কেনিয়া, মিয়ানমার ও তাজিকিস্তানও নিম্ন আয়ের দেশ থেকে নিম্ন-মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছে বলে বিশ্ব ব্যাংক জানিয়েছে।

এই দেশগুলোর মানুষের মাথাপিছু বার্ষিক আয় ১ হাজার ২৪ ডলার থেকে ৪১২৫ ডলার বলে সংস্থাটির হিসাব।

জাতিসংঘ মানব উন্নয়ন সূচকসহ আন্তর্জাতিক বিভিন্ন মানদণ্ডে বাংলাদেশের অগ্রগতির মধ্যে বিশ্ব ব্যাংকের সূচকে এই উত্তরণ দেখা দিল।

২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত করার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে এগিয়ে যাওয়া বাংলাদেশ সরকারের হিসেবে মাথাপিছু আয় এখন ১ হাজার ৩১৪ ডলার।

কয়েক মাস আগে এই তথ্য তুলে ধরে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছিলেন, মাথাপিছু আয়ের এই হিসাবে (নমিনাল) বাংলাদেশের অর্থনীতি পৃথিবীতে ৫৮তম।

“আর ক্রয় ক্ষমতার ভিত্তিতে (পারচেজিং পাওয়ার প্যারিটি) আমাদের মাথাপিছু আয় ৩ হাজার ১৯০ ডলার। ক্রয় ক্ষমতার ভিত্তিতে আমাদের অর্থনীতি পৃথিবীর ৩৬তম।”

গত ৬ বছর ধরে ৬ শতাংশের বেশি অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ধরে রাখায় বিশ্ব অঙ্গনে প্রশংসিত বাংলাদেশ। আর এর উপর ভর করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলে আসছেন, ২০২১ সালের লক্ষ্য ঠিক করা হলেও তার দুই বছর আগেই মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হবে বাংলাদেশ।

মানব উন্নয়ন সূচকে বাংলাদেশের অগ্রগতির প্রশংসা করে ঢাকায় জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি-ইউএনডিপির সমন্বয়কারী নিল ওয়াকার বলেছিলেন, “বাংলাদেশ যখন এগিয়েছে, দক্ষিণ এশিয়ার বেশির ভাগ দেশ আগের জায়গাতে রয়েছে।”

বিশ্ব ব্যাংকও বাংলাদেশের অগ্রগতির প্রশংসা করেছে।

সংস্থাটির সূচকে নিম্ন-মধ্য আয়ের দেশ থেকে উচ্চ-মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছে মঙ্গোলিয়া ও প্যারাগুয়ে। তাদের মাথাপিছু আয় ৪১২৬ ডলার থেকে ১২৭৩৫ ডলার। এক বছরে সবচেয়ে বেশি ১৩ ধাপ এগিয়েছে মালদ্বীপ, তারপরই আট ধাপ অগ্রগতি ঘটেছে মঙ্গোলিয়ার।

মাথাপিছু আয়ের ভিত্তিতে সূচকে সবচেয়ে নিচের দেশটি হল মালাবি, তাদের মাথাপিছু আয় ২৫০ ডলার। আর মাথাপিছু ১ লাখ ডলার নিয়ে সবার উপরে আছে ইউরোপের ছোট্ট দেশ মোনাকো।

বিশ্ব ব্যাংক সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী আর্জেন্টিনা, হাঙ্গেরি, সেসেলেস ও ভেনেজুয়েলাকে উচ্চ-মধ্য আয়ের দেশ থেকে উচ্চ আয়ের দেশের কাতারে নিয়েছে। তাদের মাথাপিছু আয় ১২৭৩৬ ডলারের বেশি।

প্রতিবেদন প্রকাশ করে বিশ্ব ব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ কৌশিক বসু বলেছেন, “আমাদের সর্বশেষ ডেটা দেখাচ্ছে যে বিশ্বের অর্থনৈতিক ভূগোল অনেক বদলাচ্ছে।

“১৯৯৪ সালে বিশ্বের জনসংখ্যার ৫৬.১ শতাংশের (৩০১ কোটি) বাস ছিল ৬৪টি নিম্ন আয়ের দেশে। ২০১৪ সালে এসে এটা ৮ শতাংশ কমেছে। এখন ৩১টি দেশের ৬১ কোটি মানুষের বাস নিম্ন আয়ের দেশে।”