বিদেশ গমনেচ্ছু নারীকর্মীর নিবন্ধন শুরু ৫ মার্চ

সৌদি আরব তথা বিদেশ গমনেচ্ছু নারীকর্মীর নিবন্ধন আগামী ৫ মার্চ বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হবে।

সৌদি আরবে কর্মরত এক গৃহকর্মী- সংগৃহীত
 
প্রথম পর্যায়ে ১১ মার্চ পর্যন্ত শুধু ঢাকা বিভাগের বাসিন্দারা নিবন্ধন করতে পারবেন। এরপর ১২  থেকে ১৬ মার্চ রাজশাহী ও রংপুর, ১৭ থেকে ২৩ মার্চ চট্টগ্রাম ও সিলেট এবং ২৪ থেকে ২৮ মার্চ খুলনা ও বরিশাল বিভাগে নিবন্ধন হবে।
 
পুরুষকর্মী এ দফায় নিবন্ধন করতে পারবেন না।
 
সোমবার রাজধানীর ইস্কাটনের প্রবাসীকল্যাণ ভবনে সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান প্রবাসী জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর মহাপরিচালক বেগম শামসুন নাহার।
 
তিনি জানান, দেশের প্রতিটি ইউনিয়ন, পৌরসভা এবং সিটি করপোরেশনের নগর তথ্যসেবা কেন্দ্রে এবং জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি কার্যালয়ে নিবন্ধন করা যাবে। প্রতি কর্মদিবসে সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত নিবন্ধন চলবে। নিবন্ধনের জন্য ৩০০ টাকা খরচ হবে। এর মধ্যে সরকারি ফি ২০০ টাকা। ফরম পূরণে সহায়তার জন্য উদ্যোক্তাকে দিতে হবে ১০০ টাকা। নিবন্ধনকারীদের বয়স ২৫ থেকে ৪৫ এর মধ্যে হতে হবে।
 
গত ১ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ থেকে কর্মী নেওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয় সৌদি আরব। ২০০৮ সালে বাংলাদেশ থেকে জনশক্তি নেওয়া বন্ধ করে দিয়েছিল দেশটি। পরে ১০ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশের সঙ্গে জনশক্তি রফতানিতে চুক্তি করে সৌদি সরকার। ওই দিন বিনা খরচে সৌদি আরব যাওয়ার ঘোষণায় নিবন্ধন করতে হুমড়ি খেয়ে পড়ে সাধারণ মানুষ। ভিড় সামলাতে না পেরে গত ১৭ ফেব্রুয়ারি নিবন্ধন বন্ধ করে দেওয়া হয়।
 
প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘নারী-পুরুষ কর্মী একত্রে নিবন্ধন করায় কিছু সমস্যা হচ্ছে। এ কারণেই নারীদের জন্য আলাদা নিবন্ধন চালু করা হয়েছে। বিশেষ করে যারা গৃহকর্মী হিসেবে যেতে চান তাদের আলাদা নিবন্ধন করা হবে। নিবন্ধিতদের মধ্যে যারা চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত হবে তাদের ছয় সপ্তাহ গৃহস্থালি কাজের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।’
 
এদিকে, সৌদি গেজেট সোমবার এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, আগামী ৩ মাসের মধ্যে বাংলাদেশ থেকে গৃহকর্মী সৌদি আরবে পৌঁছতে পারে বলে আশা করছে দেশটি।
 
দেশটির ইস্টার্ন প্রভিন্সের রিক্রুটমেন্ট অফিসের একাধিক সূত্রের বরাতে প্রতিবেদনটিতে আরও বলা হয়, আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে সৌদি আরবে কাজের ভিসা দেওয়া শুরু হবে।
 
সূত্রগুলো আরও জানিয়েছে, বাংলাদেশ থেকে গৃহকর্মী নিয়োগে সৌদি প্রতিষ্ঠানের খরচ পড়বে ৮ থেকে ১০ হাজার রিয়েল; বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ এক লাখ ৬৬ হাজার ৫৭৭ টাকা থেকে ২ লাখ ৮ হাজার ২২১ টাকা। আর এ কর্মীদের নির্ধারিত মাসিক বেতন হবে ৮০০ রিয়েল বা ১৬ হাজার ৬৫৭ টাকা।
 
ধারণা করা হচ্ছে, প্রতি মাসে বাংলাদেশ থেকে প্রায় ১০ হাজার কর্মী সৌদিতে আসতে পারবে; যাদের অধিকাংশই হবে গাড়িচালক ও গৃহকর্মী।
 
প্রতিবেদনে বলা হয়, গত বছরে সৌদি আরবে ১৩ লাখ বিদেশি শ্রমিক নিয়োগ দেওয়া হয়। চলতি বছরও একই সংখ্যক জনশক্তি নেওয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছে।