প্রতি মাসে ১০ হাজার শ্রমিক নেবে সৌদি আরব

প্রতি মাসে ১০ হাজার শ্রমিক নেবে সৌদি আরবপ্রবাসী কল্যাণ এবং বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, ‘সৌদি আরব প্রতি মাসে বাংলাদেশ থেকে ১০ হাজার শ্রমিক নেবে।’

সোমবার রাজধানীর প্রবাসী কল্যাণ ভবনের সম্মেলন কক্ষে ২১ সদস্যের একটি সৌদি প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

বেসরকারি খাতে প্রবাসী শ্রমিকদের নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে শ্রমিক প্রতি খরচ হবে মাত্র ২০ হাজার টাকা জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘প্রতিনিধি দলটি তাঁকে আশ্বস্থ করেছেন, নিয়োগ দাতা চাকরি প্রত্যাশীদের বিমান ভাড়া খরচ বহন করবে।’

তিনি বলেন, ‘অনলাইনে রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে চাকরি প্রত্যাশীদের জন্য সংরক্ষিত তথ্য হিসেবে জাতীয় ডাটাবেজ থেকে শ্রমিক নিয়োগ দেয়া হবে।’ সৌদির শ্রম ও আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপমন্ত্রী ড. আহমেদ আল ফাহাইদ দেশটির প্রতিনিধিদলের  নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

প্রতিনিধি দলের সদস্য এবং সৌদি আরবের আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপ-মন্ত্রী ড. আহমেদ আল ফাহাদ বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের জানান, গত বছরে তার সরকার শ্রমিকদের জন্য ১৩ লাখ নতুন ভিসা দিয়েছে এবং এ বছর অনুরূপ সংখ্যক ভিসা দেয়া হবে। তিনি বাংলাদেশ সরকারের সহায়তায় শ্রমিক নিয়োগ প্রক্রিয়া দ্রুত ও স্বাভাবিকভাবে সম্পন্ন হওয়ার ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।সৌদি প্রতিনিধি দলের প্রধান আরো বলেন, আমরা শ্রমিক নিয়োগে বেসরকারি সেক্টরের জন্য সুযোগ করে দিয়েছি।

এসব শ্রমিকদের বেতনের বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশি শ্রমিকরা  সৌদিতে গিয়ে প্রতি মাসে ১২শ’  থেকে ১৫শ’ রিয়াল বেতন পাবেন। বাংলাদেশি টাকায় যার পরিমাণ প্রায় ৩১ হাজার টাকা।’ তবে এর আগের ভারত তাদের শ্রমিকদের ন্যূনতম বেতন ১৫শ’ রিয়াল দাবি করলে বিষয়টি নাকচ করে দেয় সৌদি সরকার।

প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রী বলেন, কর্মীর ভিসা, যাতায়াত ও যাবতীয় খরচ নিয়োগকর্তা  দেবে। শুধু পাসপোর্ট তৈরিসহ গ্রাম থেকে শহরে যাতায়াত বাবদ ১৫  থেকে ২০ হাজার টাকা কর্মীর খরচ হতে পারে।