নিউ ইয়র্ক’র পুঁজি-বাজারে বাঙালি স্কুলছাত্র’র ৭২ মিলিয়ন ডলার

নিউ ইয়র্ক’র পুঁজি-বাজারে বাঙালি স্কুলছাত্র’র ৭২ মিলিয়ন ডলার

নিউ ইয়র্ক’র এক স্কুলছাত্র মধ্যাহ্নভোজের বিরতিতে পুঁজি বাজারে সময় দিয়ে ৭২ মিলিয়ন ডলার গড়েছে। সে ৪০০ ডলারের নোনা পানি, চাটনিতে মাখানো সমুদ্রের মাছের ডিম দিয়ে রাতের খাবার খাওয়ানোর জন্য বন্ধুদের রেস্টুরেন্টে নিয়ে যাচ্ছে। বিএমডব্লিউ গাড়ি চালাচ্ছে। নিশ্চিতভাবে সে তার অভিবাসী বাবা-মাকে গর্বিত করেছে।

মেইল অনলাইনের খবরে জানা গেছে, ১৭ বছর বয়সী মোহাম্মদ ইসলাম নামের ওই তরুণ নয় বছর বয়সেই শিল্প ও রাজনীতিকে পেশা হিসেবে না নিয়ে শখ হিসেবে পেনি (কয়েন) জমা করত। দুপুরে লাঞ্চের ওই ব্রেকের সময় পুঁজি বাজারের ট্রেডিং অয়েল এবং গোল্ড ফিউচার নামে দুটি কোম্পানিতে অধিক সময় দিত। মাইড-ক্যাপ-এ অল্প সময় দিত।

নিউ ইয়র্কের স্টাইভেসেন্ট হাই স্কুলে পড়াশোনার সময় সে মধ্যাহ্নভোজের বিরতির সময়টা পুঁজি বাজারে কাজে লাগায়। আর ওই সময়টা কাজে খাটিয়ে সে ৭২ মিলিয়ন ডলার গড়েছে। বিএমডব্লিউ গাড়ি কিনেছে। ম্যানহাটনে অ্যাপার্টমেন্ট কিনেছে। তার উৎসাহকে সে বিলিওনিয়ার হেজ-ফাউন্ডার পল টুডোর জন (৬০) হিসেবে উদ্ধৃতি করে।

মোহাম্মদ’র বাবা-মা দক্ষিণ এশিয়ার বাঙালি অধ্যুষিত একটি এলাকা থেকে অভিবাসী হয়ে যুক্তরাষ্টে আসেন। এই ছাত্র আশা করছে আগামী বছর ‘হেজ ফান্ড’ শুরু করা হবে এবং বন্ধুদের নিয়ে এক বিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করবে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ‘ইনস্ট্রাগ্রাম’ প্রোফাইলে সে লিখেছে ‘অধিক অর্থ, অনধিক সমস্যা।’