বিমানবাহিনীর প্রথম সামরিক নারী পাইলটের একক উড্ডয়ন

বিমানবাহিনীর প্রথম সামরিক নারী পাইলটের একক উড্ডয়ন

বিমানবাহিনীর পাইলট অফিসার তামান্না-ই-লূৎফী দেশের প্রথম সামরিক নারী বৈমানিক হিসেবে বৃহস্পতিবার একক উড্ডয়ন করেছেন । আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) এক বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সশস্ত্র বাহিনীতে নারী কর্মকর্তা নিয়োগের পাশাপাশি, জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে নারীর অবদান ও দৈনন্দিন জীবনে বিভিন্ন কর্মক্ষেত্রে নারীদের নিরলস পরিশ্রম ও নিষ্ঠার স্বীকৃতিস্বরূপ বাংলাদেশ বিমানবাহিনী প্রথমবারের মতো জিডি (পাইলট) ব্রাঞ্চে নারী বৈমানিক নিয়োগের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। বেসামরিক ক্ষেত্রে নারী বৈমানিক থাকলেও সামরিক জীবনের ঝুঁকিপূর্ণ ও চ্যালেঞ্জিং বৈমানিক পেশায় বাংলাদেশে এই প্রথম নারী বৈমানিক নিয়োগের মাইলফলক স্থাপন করে বাংলাদেশ বিমানবাহিনী।
এ প্রক্রিয়ার ধারাবাহিকতায় এ বছরের ২৩ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ বিমানবাহিনী ঘাঁটি বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমানের ১৮ স্কোয়াড্রনে প্রথমবারের মতো হেলিকপ্টার উড্ডয়ন প্রশিক্ষণ শুরু করেন দু্জন নারী বৈমানিক ফ্লাইং অফিসার নাইমা হক ও পাইলট অফিসার তামান্না-ই-লুৎফি। বেল-২০৬ হেলিকপ্টারে বেসিক কনভার্সন কোর্সের জন্য নির্বাচিত হওয়া এই দুই নারী কর্মকর্তা বর্তমানে ১৮ স্কোয়াড্রনের অধীনে উড্ডয়ন প্রশিক্ষণে প্রশিক্ষণার্থী হিসেবে নিয়োজিত আছেন।
কর্মক্ষেত্রে সাফল্যের প্রথম ধাপ হিসেবে আজ তামান্না-ই-লূৎফী বেল-২০৬ হেলিকপ্টারে প্রথম সফলভাবে একক উড্ডয়নে সক্ষমতা অর্জন করেন। নারী অগ্রযাত্রার এই অভিযান তাঁদের সাফল্য বাংলাদেশ বিমানবাহিনী তথা সমগ্র দেশ ও জাতির জন্য এক নতুন উৎসাহ ও উদ্দীপনার দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে বলে মনে করা হচ্ছে।