জাতিসংঘের ভিশনারি অ্যাওয়ার্ড পেলেন শেখ হাসিনা মায়ের পক্ষে ‘সাউথ-সাউথ’ পুরস্কার নিলেন জয়

zlf484poঅনলাইন ডেস্ক: জাতিসংঘের সাউথ-সাউথ কো-অপারেশন ভিশনারি অ্যাওয়ার্ড এ ভূষিত হলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসিতে গ্লোবাল সাউথ সাউথ ডেভেলপমেন্ট এক্সপো (জিএসএসডি এক্সপো)-এর সমাপনী উৎসবে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে এ অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ করেছেন তার তথ্য ও প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা ও ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়।

স্থানীয় সময় ২১ নভেম্বর শুক্রবার সকালে এ অ্যাওয়ার্ড হাতে নিয়ে তাৎক্ষণিক সংক্ষিপ্ত প্রতিক্রিয়ায় সজীব ওয়াজেদ জয় সাংবাদিকদের বলেন, সীমিত সম্পদের সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করে শেখ হাসিনা প্রশাসনের নেতৃত্বে আজ বাংলাদেশ যে এগিয়ে যাচ্ছে এই অ্যাওয়ার্ড তারই স্বীকৃতি।

ডিজিটাল ব্যবস্থায় বাংলাদেশকে অগ্রগতির পথে এগিয়ে নেওয়া এবং শিক্ষার প্রসারে বৈপ্লবিক ধ্যান-ধারণার সমন্বয়ের জন্য শেখ হাসিনাকে এ অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয়। এবার মানবতার কল্যাণে বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্যে আরও ছয় ব্যক্তি ও রাষ্ট্রকে অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয়েছে। দক্ষিণ কোরিয়া, মালয়েশিয়া, কাতার, অর্গানাইজেশন অব আমেরিকান স্টেটস, গ্রুপ চিফ এক্সিকিউটিভ এডেক ইনোভেশন, ল্যাটিন আমেরিকান সাউথ-সাউথ কান্ট্রিজ অ্যাসোসিয়েশন এ অ্যাওয়ার্ড পেয়েছে।

জাতিসংঘের গ্লোবাল সাউথ সাউথ ডেভেলপমেন্ট এক্সপো তার ঘোষণায় বলেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রশাসনের সময় বাংলাদেশে তৃণমূলে তথ্যপ্রযুক্তি প্রসার, সর্বজনীন শিক্ষাব্যবস্থার প্রবর্তন, সর্বসাধারণের কাছে স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দেওয়া, সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনীর মাধ্যমে সমাজে অবহেলিত মানুষের জীবনধারার মানোন্নয়ন ও দারিদ্র্য বিমোচনে অগ্রগতি এবং সীমিত সম্পদের সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করে বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রাকে বিশ্ব দরবারে রোল মডেল হিসেবে উপস্থাপনের জন্য এ ভিশনারি অ্যাওয়ার্ড পাবার যোগ্যতা অর্জন করেন।

২০০৮ সাল থেকে জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বার্ষিক এ সমাবেশ হয়ে আসছে। এবারের আয়োজনটি ছিল সপ্তম এক্সপো। রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, পরিবেশ এবং প্রযুক্তিগতভাবে দক্ষিণের দেশগুলোর সামগ্রিক উন্নয়নে পারস্পরিক সহযোগিতা দিগন্ত বিস্তৃত করার লক্ষ্যে ২০০৮ সালে জাতিসংঘে সাউথ-সাউথ কো-অপারেশন গঠিত হয়। প্রতিবছরের সমাবেশে উন্নত বিশ্বের উন্নয়ন পরিক্রমার অভিজ্ঞতা অবহিত হয়ে উন্নয়নশীল বিশ্বে সেই ধারা প্রবাহিত করার ক্ষেত্রে এই সম্মেলনের গুরুত্ব অপরিসীম।