প্রকল্প বাস্তবায়ন সফলতায় আইএমএফের সন্তুষ্টি

কাগজ প্রতিবেদক: আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) অর্থায়নপুষ্ট বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়নের অগ্রগতিতে বাংলাদেশ সরকারের প্রশংসা করেছেন সংস্থাটির উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক (ডিএমডি) নাওইউকি শিনোহারা। বিভিন্ন উন্নয়ন সূচকে বাংলাদেশের অগ্রগতিতে এসব প্রকল্পের ভূমিকা রয়েছে বলে মনে করেন তিনি। ঢাকা সফররত শিনোহারা গতকাল বুধবার বিকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তার জাতীয় সংসদের কার্যালয়ে এক সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন।

পরে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব এ কে এম শামীম চৌধুরী এক ব্রিফিংয়ে বলেন, বৈঠকে আইএমএফের অর্থায়নে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন নিয়ে আলোচনা হয়। বাংলাদেশে আইএমএফের অর্থায়নে প্রকল্প বাস্তবায়নে সন্তোষ জানিয়ে দাতা সংস্থটি বাংলাদেশে ঋণ প্রদানের ক্ষেত্রে শর্ত শিথিল করেছে বলেও বৈঠকে জানিয়েছেন শিনোহারা।

বাংলাদেশে বর্তমানে বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ থাকায় সন্তোষ প্রকাশ করে আইএমএফ প্রতিনিধি বলেন, অতীতের যে কোনো সময়ের চেয়ে এখন বাংলাদেশে বিনিয়োগের পরিবেশ অনেক ভালো।

শেখ হাসিনার নেতৃত্ব সম্পর্কে নাওইউকি শিনোহারা বলেন, তার (শেখ হাসিনা) সরকার দারিদ্র্য কমানোর পাশাপাশি মানুষের আয় বাড়াতে সক্ষম হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে সমাজের সবচেয়ে দুর্বল অংশের উন্নয়ন নিশ্চিত হয়েছে। আইএমএফের ডিএমডি বৈঠকে বাংলাদেশের ব্যাংকিং খাতের ওপর নজরদারি আরো বাড়ানোর ওপর জোর দেন বলে জানান প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব। তিনি বলেন, এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ সরকারের উন্নয়ন প্রক্রিয়ায় সহায়তা দেয়ায় আইএমএফকে ধন্যবাদ জানান।প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের অবকাঠামোগত উন্নয়নে সংস্থার অর্থ সহায়তা অব্যাহত রাখার আহ্বান জানান। দেশ ও জনগণের উন্নয়নের জন্যই তার সরকার কাজ করছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, সরকার জনগণের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে এবং এ কাজে সফল হতে প্রয়োজনীয় সবকিছুই করা হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, টেকসই উন্নয়নের জন্য তার সরকার শুধু শহরেরই নয়, গ্রামাঞ্চলেরও উন্নয়ন করছে।এ প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার কথা বলার পাশাপাশি দারিদ্র্য দূরীকরণসহ বিভিন্ন সূচকের উন্নয়নে সরকারের সাফল্যের চিত্র তুলে ধরেন। বাংলাদেশে বেসরকারি খাতকে শক্তিশালী করা নিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, বেসরকারি খাতকে শক্তিশালী করতে তার সরকার ১৯৯৬ সালে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নেয় এবং তারা এখন দেশের বিভিন্ন খাতের উন্নয়ন কর্মকান্ড সম্পৃক্ত।

এ সময় অ্যাম্বাসেডর অ্যাট লার্জ এম জিয়াউদ্দিন, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আবদুস সোবহান সিকদার, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব মোঃ আবুল কালাম আজাদ ও অর্থ সচিব ফজলে কবীর উপস্থিত ছিলেন।