গরিব রোগীদের হেলথ কার্ড দেয়া হবে- স্বাস্থ্যমন্ত্রী

 

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, গরীব রোগীদের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে সরকার হেলথ কার্ড প্রদানের উদ্যোগ নিয়েছে। দরিদ্র মানুষের চিকিত্সা সেবায় এগিয়ে আসার জন্য বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের প্রতি আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, বাংলাদেশ গরীব হওয়ায় সরকারের একার পক্ষে সব কিছু করা সম্ভব নয়। তাই বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে সপ্তাহে অন্তত একদিন গবীর রোগীদের জন্য বিনামূল্যে সেবা দেবার ব্যবস্থা করুন।

গতকাল শুক্রবার সকালে হোটেল রেডিসনে আন্তর্জাতিক সায়েন্টিফিক কনফারেন্সে তিনি এ কথা বলেন। বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব কার্ডিয়াক ভ্যাসকুলার এন্ড থোরাসিক সার্জিওনস এ কনফারেন্সটি আয়োজন করে। নিজেদের মধ্যে গ্রুপিং না করার জন্য চিকিত্সকদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আপনাদের দায়িত্ব সেবা প্রদান করা। আপনারা নিজেদের মধ্যে গ্রুপিং করবেন, এটা মোটেই ঠিক নয়। আপনারা সব সময় মানুষের সেবায় নিয়োজিত থাকবেন। গ্রামাঞ্চলের হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোতে ভাল ডাক্তার নিয়োগ করা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, গ্রামাঞ্চলের মানুষ সুচিকিত্সার অভাবে রাজধানীর দিকে ছুটে আসেন। আবার গ্রামের অনেক হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোতে ভাল ডাক্তার খুঁজে পাওয়া যায় না। গ্রামাঞ্চলে গিয়ে চিকিত্সকরা যেন চিকিত্সা সেবা দিতে উত্সাহী হয়, সে জন্য তাদের উদ্বুদ্ধ করতে হবে। গ্রামাঞ্চলে চিকিত্সা সেবা নিশ্চিত করতে হবে। তিনি বলেন, আগামী একমাসের মধ্য ছয় হাজার ডাক্তার নিয়োগ দেয়া হবে। এ সকল ডাক্তারদের নিজ নিজ জেলায় কাজ করতে হবে। গ্রামে দায়িত্ব পালন করলে চিকিত্সকদের সরকার গাড়ি দেবার ব্যবস্থা করবে। এছাড়া যারা গ্রামে একটানা তিন বছর থাকবেন তারা পরবর্তীতে ভালো স্থানে বদলি হতে পারবেন। সংগঠনের সভাপতি ডা. জাহাঙ্গীর কবীরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান, জাতীয় অধ্যাপক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) ডা. আব্দুল মালিক, সংগঠনের সহ সভাপতি ডা. ফারুক আহম্মেদ, অধ্যাপক ডা. হাবিবে মিল্লাত এমপি প্রমুখ। 

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, বিএনপি’র আন্দোলন করার নস্ফিল হুমকিতে কোন লাভ হবে না। বিএনপি ব্যর্থ বাগাড়ম্বর করে যাচ্ছে। বর্তমান নির্বাচিত সরকারকে অবৈধ আখ্যা দিয়ে বৃথা গলা ফাটিয়ে কোন লাভ না হওয়ায় এখন আবার সংলাপে বসার আকুতি জানাচ্ছে। শুধু বিএনপি নয়, দেশের উন্নয়নে সহযোগিতার ব্যাপারে সবার সঙ্গে আলোচনা হতে পারে। তবে, ২০১৯ সালের পরবর্তী একাদশ সংসদ নির্বাচনে দেশবাসীই নির্ধারণ করবেন কারা পরবর্তী সরকার গঠন করবে। মন্ত্রী শুক্রবার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের শহীদ শামসুদ্দিন সম্মেলন কক্ষে সিরাজগঞ্জ কল্যাণ ট্রাস্টের উদ্যোগে মেধাবী শিক্ষার্থীদের বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম দুর্বৃত্তদের হামলায় আহত ঢাকায় সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিত্সাধীন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য একেএম এনামুল হক শামীমকে দেখতে গতকাল দুপুরে হাসপাতালে যান। প্রায় আধাঘণ্টা শামীমের শয্যাপাশে অবস্থানকালে মন্ত্রী তার শারিরীক অবস্থার খোঁজ-খবর নেন এবং আশু রোগমুক্তি কামনা করেন। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান, অধ্যাপক ডা. হাবিবে মিল্লাত এমপি প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।