১১ মাসে রপ্তানি-আয় বেড়েছে ১২.৫৬%

দেশের মোট পণ্য রপ্তানি আয় দুই হাজার ৭৩৭ কোটি মার্কিন ডলার। এর মধ্যে শুধু তৈরি পোশাক রপ্তানি থেকেই এসেছে দুই হাজার ২১৭ কোটি ডলার। ফলে পাট ও পাটজাত পণ্য, প্লাস্টিকসহ অনেক পণ্য রপ্তানিতে সুখবর না থাকলেও সামগ্রিক রপ্তানি-আয়ে সন্তোষজনক অবস্থা বজায় আছে।
রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) আজ রোববার প্রকাশিত রপ্তানির হালনাগাদ পরিসংখ্যান থেকে এসব তথ্য জানা যায়।
চলতি ২০১৩-১৪ অর্থবছরের প্রথম ১১ মাস অর্থাত্ জুলাই-মে সময়ে দেশের পণ্য রপ্তানি-আয়ের চিত্র এটি। এ সময় রপ্তানি-আয়ের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১২ দশমিক ৫৬ শতাংশ। তবে মোট রপ্তানি-আয় দুই হাজার ৭৩৭ কোটি ডলার লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে শূন্য দশমিক ২১ শতাংশ কম।
প্রকাশিত পরিসংখ্যান অনুযায়ী, মে মাসে ২৭২ কোটি ডলারে পণ্য রপ্তানি হয়েছে। এই আয় লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৫ দশমিক ৪৫ শতাংশ কম এবং গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ৭ দশমিক ২২ শতাংশ বেশি। ফেব্রুয়ারি, মার্চ ও এপ্রিলে রপ্তানি-আয় ছিল যথাক্রমে ২৩৮, ২৪১ ও ২৪১ কোটি ডলার।
মোট রপ্তানি-আয়ের মধ্যে ৮১ শতাংশ তৈরি পোশাক (নিট ও ওভেন) খাত থেকে এসেছে। পরিমাণ দুই হাজার ২১৭ কোটি ডলার, যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে দেড় শতাংশ কম। পোশাকশিল্পের মোট রপ্তানির মধ্যে ওভেনে সর্বোচ্চ এক হাজার ১২৫ কোটি ও নিটে এক হাজার ৯১ কোটি ডলার আয় হয়।
ইপিবির পরিসংখ্যান থেকে দেখা যায়, আলোচ্য সময়ে হিমায়িত খাদ্যে ৫৭ কোটি, চামড়ায় ৪৬ কোটি ও চামড়াজাত পণ্যে ২১ কোটি ডলার আয় হয়েছে। তিনটি পণ্যের ক্ষেত্রেই লক্ষ্যমাত্রা ও প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে। তবে পাট ও পাটজাত পণ্যে বরাবরের মতোই নেতিবাচক ধারাতেই আছে। আলোচ্য সময়ে খাতটি থেকে ৭৫ কোটি ডলার রপ্তানি হলেও তা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে সাড়ে ২৭ ও গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ২০ শতাংশ কম।

source