ডিজিটাল বাংলাদেশ: সরকারি ২৫ হাজার ওয়েবসাইট উদ্বোধন হচ্ছে ২৩ জুন

সরকারের একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রামের আওতায় আগামী ২৩ জুন উদ্বোধন হতে যাচ্ছে ২৫ হাজার ওয়েবসাইট। আশা করা হচ্ছে, এর মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার পদক্ষেপে আরো এক ধাপ অগ্রগতি হবে। ঘরে বসেই সাধারণ মানুষ সরকারের নানাবিধ সেবা গ্রহণ করতে পারবে। একই সঙ্গে একটি পোর্টালে অন্তর্ভুক্ত হবে সরকারের সব কার্যক্রমের তথ্যাবলি।

জানা যায়, ‘পাবলিক সার্ভিস ডে’ পালনের জন্য সরকার ইতিমধ্যে ব্যাপক পদক্ষেপ নিয়েছে। এর অংশ হিসেবে শিক্ষার্থীদের মধ্যে রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে। দেশব্যাপী জেলা প্রশাসন কার্যালয়ের মাধ্যমে এ কর্মসূচি পালিত হবে। সে লক্ষ্যে বিস্তারিত নির্দেশনা দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে দেশের সব জেলা প্রশাসকের কাছে চিঠি পাঠানো হয়েছে। পাবলিক সার্ভিস ডের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে- টেকসই উন্নয়ন ও জনকল্যাণে দরকার উদ্ভাবনী সরকার।

জানতে চাইলে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের পলিসি অ্যাডভাইজার আনির চৌধুরী বলেন, ‘১৫ লাখের বেশি তথ্য আছে এসব ওয়েবসাইটে। দেশের প্রতিটি ইউনিয়ন পর্যায়েরও অন্তত দুটি দর্শনীয় স্থানের ছবি থাকছে, ট্যুরিজম বোর্ড চাইলে যা দিয়ে পর্যটন তথ্যভাণ্ডার করতে পারবে।’ তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক পাবলিক সার্ভিস ডে উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী কেবিনেট মিটিংয়ে সব মন্ত্রীকে নিয়ে এসব ওয়েবসাইট উদ্বোধন করবেন। এর মধ্য দিয়ে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে বড় ধরনের অগ্রগতি হবে।

চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সহকারী কমিশনার রাকিব হাসান কালের কণ্ঠকে জানান, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একসেস টু ইনফরমেশন প্রোগ্রামের জনপ্রেক্ষিত বিশেষজ্ঞ নাঈমুজ্জামান মুক্তা গত ৮ জুন একটি চিঠি পাঠিয়েছেন। তাতে বলা হয়েছে, সম্প্রতি ইন্টারন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন ইউনিয়ন (আইটিইউ) ডাব্লিউএসআইএস অ্যাওয়ার্ডের জন্য ই-গভর্নমেন্ট ক্যাটাগরিতে একসেস টু ইনফরমেশন প্রোগ্রামকে চূড়ান্তভাবে নির্বাচন করা হয়েছে। তাই এবার পাবলিক সার্ভিস ডে উদ্‌যাপনে এটুআই প্রোগ্রাম, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এবং মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ একত্রে কাজ করছে। আশা করা হচ্ছে, ২৩ জুন অথবা ওই সপ্তাহের যেকোনো দিন ২৫ হাজার ওয়েবসাইটসমৃদ্ধ জাতীয় বাতায়ন উদ্বোধন করা হবে।

জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে এ বাতায়ন সম্পর্কে স্কুল ও কলেজ পর্যায়ে রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হবে। প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের পুরস্কৃত করা হবে। এ কার্যক্রমের জন্য পৃথক নির্দেশনা এবং বাজেট দেওয়া হয়েছে জানিয়ে রাকিব হাসান বলেন, ‘জাতীয় বাতায়নের কার্যক্রম দীর্ঘদিন আগে শুরু হয়। এর মধ্যেই প্রায় সব ওয়েবসাইট সচল হয়েছে। পাশাপাশি সম্প্রতি নতুনভাবে ওয়েবসাইট সজ্জিত হয়েছে। এতে ব্যবহারকারীরা আরো বেশি স্বচ্ছন্দে ওয়েবসাইট ব্যবহার করতে পারবে।’

– See more at: http://www.kalerkantho.com/print-edition/news/2014/06/15/96348/#sthash.6kWLOt83.dpuf