পোশাক শিল্পে নগদ সহায়তার হার বাড়ল

বিদ্যমান নগদ সহায়তার পাশাপাশি তৈরি পোশাকের রপ্তানি মূল্যের ওপর ০.২৫ শতাংশ হারে বাড়তি নগদ সহায়তা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এ ছাড়া নতুন বাজার সম্প্রসারণে ঘোষিত নগদ সহায়তার হারও ১ শতাংশ বাড়ানো হচ্ছে। গতকাল রবিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রা নীতি বিভাগ এ-সংক্রান্ত এক সার্কুলার জারি করে বিদেশি মুদ্রা লেনদেনে নিয়োজিত অনুমোদিত ডিলারদের পাঠিয়েছে।

সার্কুলারে বলা হয়েছে, তৈরি পোশাক খাতে সহযোগিতা দেওয়ার লক্ষ্যে সরকার এ খাতের সব রপ্তানিকারককে অতিরিক্ত কিছু আর্থিক সহায়তা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এর মধ্যে তৈরি পোশাকে বিদ্যমান অবস্থার অতিরিক্ত হিসেবে জাহাজীকৃত তৈরি পোশাকের রপ্তানি মূল্যের ওপর ০.২৫ শতাংশ বাড়তি নগদ সহায়তা দেওয়া হবে। পাশাপাশি নতুন পণ্য বা নতুন বাজার সম্প্রসারণ (যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, ইইউভুক্ত দেশ ছাড়া অন্যান্য দেশে) খাতে সহায়তার হার ২ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ৩ শতাংশে উন্নীত করা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে বাজার সম্প্রসারণ সহায়তা পরিশোধের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য অন্যান্য শর্ত এ-সংক্রান্ত সার্কুলার অনুযায়ী পরিপালনীয় হবে। চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে জাহাজীকৃত পণ্যে আগের নিয়মে ২ শতাংশ হারে নগদ সহায়তা গ্রহণ করলেও বাকি ১ শতাংশের জন্য আবেদন করা যাবে।

সার্কুলারে আরো বলা হয়, কোনো রপ্তানিকারক একই রপ্তানির বিপরীতে প্রচলিত নগদ সহায়তা, ক্ষুদ্র ও মাঝারি বস্ত্র শিল্পের জন্য অতিরিক্ত সহায়তা এবং বাজার সম্প্রসারণ সহায়তা তিনটিই প্রাপ্য হলে বর্ধিত বা প্রস্তাবিত ব্যবস্থায় এই তিনটি খাতে মোট নগদ সহায়তা সর্বোচ্চ ১১ শতাংশ পাবেন।

নগদ সহায়তার আবেদনের বিষয়ে সার্কুলারে বলা হয়েছে, রপ্তানিমূল্য প্রত্যাবাসনের তারিখের ১৮০ দিনের মধ্যে সংশ্লিষ্ট অনুমোদিত ডিলার ব্যাংক শাখায় বাড়তি নগদ সহায়তার আবেদনপত্র দাখিল করতে হবে। চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে সার্কুলার জারির তারিখ পর্যন্ত জাহাজীকৃত পণ্যের বিপরীতে বর্ধিত সুবিধার আবেদন নির্ধারিত ১৮০ দিনের মধ্যে দাখিল করা যাবে।

সার্কুলারে বলা হয়, রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল বা ইপিজেডের বাইরে অবস্থিত বস্ত্রশিল্পের তৈরি পোশাক শিল্প-প্রতিষ্ঠানের জন্যও বাড়তি ০.২৫ শতাংশ সহায়তা প্রযোজ্য হবে। শুল্ক বন্ড বা ডিউটি ড্র ব্যাক সুবিধা নেওয়ার পাশাপাশি এই সহায়তা নেওয়া যাবে।

সংশ্লিষ্ট অনুমোদিত ডিলার ব্যাংকগুলোকে এসব সহায়তার আবেদন ভালোভাবে যাচাই-বাছাই করে কেন্দ্রীয় ব্যাংককে পাঠানোর পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। আবেদন যাচাই-বাছাইয়ের জন্য একটি নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে ওই সার্কুলারে।