মুক্তিযুদ্ধের চেতনা হলো অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়ন

মুক্তিযুদ্ধের চেতনা হলো অর্থনৈতিক, সামাজিক উন্নয়ন এবং অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. আবুল বারকাত।তিনি বলেন, কোনো জিনিস মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাইরে। তাই মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাস্তবায়ন করতে হলে অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নে মনোযোগ দিতে হবে।রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে আঞ্চলিক বিষয়সমূহ’ শীর্ষক সেমিনারের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।শনিবার বেলা ১১টায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট ভবনে বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগ এবং বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির উদ্যোগে এ সেমিনারের আয়োজন করা হয়।অর্থনীতিবিদ আবুল বারকাত আরো বলেন, দেশে আদিবাসীদের অধিকার যথাযথ ভাবে দেওয়া হচ্ছে না। অথচ তারাও আঞ্চলিক উন্নয়নের জন্য কাজ করছে। বাংলাদেশ সরকার তাদেরকে আদিবাসী নয়, বরং ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী বলছে। কারণ আদীবাসীদের যে অধিকার সংবিধানে আছে তা তাদের দেওয়া হচ্ছে না।সেমিনারের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর মুহম্মদ মিজানউদ্দিন। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপউপাচার্য প্রফেসর চৌধুরী সারওয়ার জাহান। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর তৌফিক আহমেদ চৌধুরী স্বাগত বক্তব্য রাখেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের সভাপতি প্রফেসর মোয়াজ্জেম হোসেন খান অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন।দিনব্যাপী এ সেমিনারে দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও পেশাজীবী সংস্থা থেকে অর্থনীতি ও পরিকল্পনাবিদ, গবেষক, শিক্ষার্থীসহ বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির কর্মকর্তারা অংশ নেন।সেমিনার উদ্বোধনের পর দু’টি অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। অধিবেশন দুটিতে বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির সভাপতি প্রফেসর আবুল বারকাত এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় অর্থনীতি বিভাগের প্রফেসর তারিক সাইফুল ইসলাম সভাপতিত্ব করেন।