ড. আশরাফের সাফল্য

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) পেট্রোলিয়াম এ্যান্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এবং সাবেক চেয়ারম্যান ড. আশরাফ আলী সিদ্দিকী কক্সবাজারের ভূ-গর্ভস্থ পানিতে বিষাক্ত পদার্থ ইউরেনিয়াম এবং থোরিয়াম উপস্থিতির নতুন তথ্য উদ্ঘাটন করেছেন। তিনি দীর্ঘ তিন বছর (২০১০-২০১৩) কক্সবাজার শহর এবং পার্শ্ববর্তী এলাকার ভূ-গর্ভস্থ পানি এবং বালি গবেষণা করে এ তথ্য পান। 
ড. আশরাফ আলী সিদ্দিকী বলেন, ওই এলাকা থেকে প্রায় ১০০টি বিভিন্ন গভীরতার নলকূপ থেকে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে পানি ও বালি সংগ্রহ করে জাপানের ওসাকা সিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে ওহফঁপবফ ঈড়ঁঢ়ষবফ চষধংসধ-গধংং ঝঢ়বপঃৎড়সবঃৎু (ওঈচ-গঝ)-এর সাহায্যে পরীক্ষা নিরীক্ষা করেন। এতে ভূ-পৃষ্ঠ থেকে ২০-৩০ ফুট গভীরতার নলকূপের প্রতি লিটার পানিতে সর্বোচ্চ চার মাইক্রোগ্রাম ইউরেনিয়ামের উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়। এই মাত্রা ১৯৯৮ সালে ডব্লিউএইচও’র গাইড লাইনের মাত্রার (দুই মাইক্রোগ্রাম প্রতি লিটার) চেয়ে দ্বিগুণ। 
তিনি আরও লক্ষ্য করেন, ২০০-২৫০ ফুট গভীরতার নলকূপের পানিতে থোরিয়ামের উপস্থিতি প্রতি লিটার পানিতে সর্বোচ্চ এক দশমিক ছয় মাইক্রোগ্রাম। তিনি কক্সবাজারের কলাতলি এলাকার থেকে সংগৃহীত বালি ঝঊগ-ঊউঅঢ মাধ্যমে পরীক্ষা করে আরও দেখতে পান, মোনাজাইট এবং জিরকন নামক মূল্যবান ভারি খনিজ পদার্থে মাত্রাতিরিক্ত অর্থাৎ প্রায় ১৬ শতাংশ ইউরেনিয়াম এবং থোরিয়াম বিদ্যমান, যা সাধারণ মাত্রার চেয়ে অনেক গুণ বেশি। তিনি ধারণা করেন, মোনাজাইট এবং জিরকন নামক পদার্থ থেকে বিভিন্ন রাসায়নিক বিক্রিয়ার মাধ্যমে নিঃসরিত হয়ে বিভিন্ন উপায়ে এ বিষাক্ত পদার্থ ভূ-গর্ভস্থ পানিতে মিশে যাচ্ছে। অতিরিক্ত ভূ-গর্ভস্থ পানি উত্তোলনের ফলে পানিতে লবণাক্ততার পাশাপাশি এই বিষাক্ত পদার্থ নিঃসরণ হতে পারে। এ বিষয়টি পরিবেশের জন্য মারাত্মক হুমকিস্বরূপ। 
তরুণ এই বিজ্ঞানীর এ ধরনের গবেষণা বাংলাদেশে এই প্রথম এবং তাঁর গবেষণালব্ধ ফলাফল ইউরেনিয়াম ও থোরিয়ামের পাশাপাশি অন্যান্য উপাদান যেমন, রেডিয়াম, রেডন ইত্যাদি সম্পর্কে আরও উন্নত গবেষণা করার ক্ষেত্র তৈরি করবে বলে আশা করা হচ্ছে। 
তিনি বলেন, পানিতে ইউরেনিয়াম এবং থোরিয়ামের মাত্রা পরিমাপ করার সঙ্গে সঙ্গে ইউরেনিয়াম এবং থোরিয়ামের কি ধরনের আইসোটোপ, পানি এবং বালিতে বিদ্যমান তা জানা খুবই জরুরী। তাঁর এ গবেষণা বাংলাদেশের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়ের সুচনা করবে বলে মনে করা হচ্ছে। 
ড. আশরাফ সিদ্দিকীর গবেষণার ওপর নিবন্ধ আমেরিকার জর্জিয়া বিশ্ববিদ্যালয় এবং অস্ট্রিয়ার সিটিবিটিও (আন্তর্জাতিক পারমাণবিক বিস্তার রোধ সংস্থা) গ্রহণ করেছে। তিনি পেপার উপস্থাপনের জন্য আগামী জুনে আমেরিকা ও অস্ট্রিয়া যাবেন। ড. সিদ্দিকী বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন কর্তৃক বিশ্ব ব্যাংক এবং বাংলাদেশ সরকারের আর্থিক সহায়তায় উচ্চ শিক্ষা মানোন্নয়ন