দেশের প্রথম নারী ছত্রীসেনা জান্নাতুল ফেরদৌস

দেশের প্রথম নারী ছত্রীসেনা জান্নাতুল ফেরদৌসযাযাদি রিপোর্ট বাংলাদেশে প্রথম নারী ছত্রীসেনা (প্যারাট্রুপার) হিসেবে সফলভাবে অবতরণের সম্মান অর্জন করেছেন সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেন জান্নাতুল ফেরদৌস। মঙ্গলবার বেলা ১১টা ২০ মিনিটে সিলেটের জালালাবাদ সেনানিবাসের পানিছড়া এলাকায় তিনি বিমানবাহিনীর একটি বিমান থেকে প্যারাসুটের মাধ্যমে সফলভাবে মাটিতে অবতরণ করেন। এক হাজার ফুট উঁচু থেকে এ অবতরণের মাধ্যমে জান্নাতুল ফেরদৌস শেষ করেন তার প্রশিক্ষণ। এই রোমাঞ্চকর অভিজ্ঞতার কথা বর্ণনা করতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘খুব মজা। বিস্ময়কর লাগছে। মনে হচ্ছে আরেকবার জাম্প দিই।’ জান্নাতুল ফেরদৌসের মতে, এ কাজে সামরিক বাহিনীর অন্য নারীদেরও এগিয়ে আসা উচিত। তিনি বলেন, ‘এটি খুব সাহসিকতাপূর্ণ কাজ। প্রথমে ভয় করছিল। তবে প্রশিক্ষণ শেষে বিষয়টা সাধারণ মনে হয়েছে।’ উপস্থিত সবাই তার সফলতাকে হাততালি দিয়ে স্বাগত জানান। জান্নাতুল ফেরদৌসের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়। ব্যবসায়ী বাবা ও গৃহিণী মায়ের চার ছেলেমেয়ের মধ্যে জান্নাতুল তৃতীয়। বর্তমানে মিলিটারি একাডেমির কম্পিউটার প্রশিক্ষক হিসেবে কর্মরত। ২০০৭ সালে বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমির (বিএমএ) ৫৯তম ব্যাচের ক্যাডেট হিসেবে সেনাবাহিনীতে তার যাত্রা শুরু করেন। তিনি স্বপ্ন দেখেন একটি সুখী বাংলাদেশের। ছত্রীসেনা দলের প্রধান প্রশিক্ষক লে. কর্নেল এ কে এম সাইফুল ইসলাম বলেন, ছত্রীসেনা হতে সামরিক বাহিনীতে নারীর অংশগ্রহণের পথ উন্মুক্ত রয়েছে। এ ব্যাপারে এতদিন কোনো নারী সাহস দেখাননি।