৩৫৭ জন বাংলাদেশি পুলিশ সদস্য জাতিসংঘ শান্তি পুরস্কারে ভূষিত

যাযাদি রিপোর্ট বাংলাদেশ পুলিশের ৩৫৭ জন সদস্যকে জাতিসংঘ শান্তি পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। পেশাগত উৎকর্ষতা, উচ্চ নৈতিকতা এবং শান্তিরক্ষার কার্যক্রমে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ শুক্রবার তাদের এ পুরস্কার দেয়া হয়। পুরস্কারপ্রাপ্তরা সবাই পশ্চিম আফ্রিকার দেশ আইভরিকোস্টে শান্তি মিশনের দায়িত্বে নিয়োজিত আছেন। পুলিশ সদর দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, অনুচি মুসলিম অধ্যুষিত শহর ‘বুয়াকে’ ব্যানএফপিইউ-১ এর প্যারেড মাঠে শুক্রবার সকাল ১১টার দিকে পুলিশ কমিশনার মি. জেন মারি বুড়ি বাংলাদেশি পুলিশ সদস্যদের শান্তি পুরস্কার ‘ইউএন মেডেল’ পরিয়ে দেন এবং সনদপত্র বিতরণ করেন। প্যারেডে প্রধান অতিথি মি. জেন মারি বুড়ি তার বক্তব্যে বাংলাদেশি পুলিশ সদস্যদের নিষ্ঠা, আন্তরিকতা ও পেশাদারি আচরণ শান্তিরক্ষা কার্যক্রম অবদানের ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন, বাংলাদেশ পুলিশ সদস্যরা আগামীতেও এ ধারা অব্যাহত রাখবে। মি. জেন মেডেল প্যারেডের অভিবাদন গ্রহণ ও মনোজ্ঞ কুচকাওয়াজ পরিদর্শন করেন। সিনিয়র এএসপি মো. রেজাউল মাসুদ মেডেল প্যারেডের অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেন। অনুষ্ঠানে ব্যানএফপিইউ-১ এর কমান্ডার আবুল খায়ের এবং ব্যানএফপিইউ-২ এর কমান্ডার ডক্টর মো. আক্কাছ উদ্দিন ভূঁইয়া বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক বিশেষ প্রতিনিধি সেক্টর ইস্ট প্রধান আলাসান ফল, অ্যামিল আদা, ঈশা মোহাম্মদ, মাহমুদ আল সুবেঈ, সোবারী পিনু টম, মাইকেল রাও, ফাসুয়া কার্মারা, সেক্টর ইস্ট ও ওয়েস্ট মিলিটারি প্রধান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ইউসুফ, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সোহেল, সেক্টর ইস্ট টঘচঙখ প্রধান ইসমাইল, এফপিইউ কো-অর্ডিনেটর নাদের রাফাত এবং কমান্ডিং অফিসার ইঅঘইঅঞ-১, ইঅঘঊঘএ, চঅকঊঘএ, ঘানা এভিয়েশন ইজিপ্ট (ইঞ্জি) বুয়াকের মেয়র, জেন্ডামারী পুলিশ প্রধানসহ ঊর্ধ্বতন সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তা, স্থানীয় প্রশাসন ও ধর্মীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।