বাংলাদেশ-মিয়ানমার ট্রানজিট ফের চালু

মিয়ানমারের আরাকানে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার কারণে দীর্ঘ প্রায় পৌনে ৩ মাস বন্ধ থাকার পর অবশেষে বাংলাদেশ -মিয়ানমার ট্রানজিট চালু হয়েছে। মঙ্গলবার থেকে ট্রানজিট চালু হলে দুই দেশের নাগরিকরা এপার-ওপার যাতায়াত করে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ৮ জুন বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী মিয়ানমারের আরাকান রাজ্যে (রাখাইন এস্টেট) রোহিঙ্গা মুসলিম এবং রাখাইন বৌদ্ধদের মধ্যে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা দেখা দিলে পরদিন থেকে দুই দেশের সীমান্ত বাণিজ্য এবং ট্রানজিট বন্ধ হয়ে যায়। পরবর্তীতে সীমান্ত বাণিজ্য চালু হলেও ট্রানজিট চালু না থাকায় এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ে সীমান্ত বাণিজ্যে। দাঙ্গার কারণে দুই দেশের সীমান্ত বাণিজ্যও ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তবে পুনরায় ট্রানজিট চালু হওয়ায় দুই দেশের সীমান্ত এলাকার লোকজন দারুণ খুশি। জানা যায়, ট্রানজিট চালু হওয়ার পর মঙ্গলবার মিয়ানমারের ৪৯ জন নাগরিক বাংলাদেশে তাদের আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে সাক্ষাতের জন্য দুটি ট্রলার নিয়ে টেকনাফ স্থলবন্দরে আসেন। একইভাবে টেকনাফ থেকে ৩৬ বাংলাদেশি তাদের আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে দেখাসাক্ষাৎ করার জন্য মিয়ানমারে গমন করেন। উল্লেখ্য, বাংলাদেশ এবং মিয়ানমার সীমান্ত এলাকায় বসবাসকারীদের মধ্যে আত্মীয়তার সম্পর্ক রয়েছে। দুই দেশের বাসিন্দারা যাতে প্রতিবেশী দেশে গিয়ে আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে পারেন, সেজন্য প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের শাসনামলে ট্রানজিট ব্যবস্থা চালু করা হয়।