বিদেশি বিনিয়োগ আসায় ‘রেকর্ড’

গত বছর রেকর্ড ১১৩ কোটি মার্কিন ডলারের সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ (এফডিআই) দেশে এসেছে বলে জানিয়েছে বিনিয়োগ বোর্ড।
২০১১ সালে আসা বিদেশি বিনিয়েগের এই পরিমাণ আগের বছরের চেয়ে ২৪ দশমিক ৪২ শতাংশ বেশি।

বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলন ‘বিশ্ব বিনিয়োগ প্রতিবেদন ২০১২’ প্রকাশ করে বিনিয়োগ বোর্ডের নির্বাহী চেয়ারম্যান এসএ সামাদ বলেন, “এই পরিমাণ সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ এর আগে আর আসেনি।”

তিনি জানান, সর্বশেষ ২০০৮ সালে ১০৮ কোটি ডলারের সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ এসেছিল, যার মূল কারণ ছিল টেলিকম খাতে বিদেশি বিনিয়োগ।
গত বছর দেশে আসা বিনিয়োগের মধ্যে ২৭ কোটি ১০ লাখ মার্কিন ডলার এসেছে বস্ত্র ও পোশাক শিল্পে। এছাড়া ব্যাংক খাতে ২৪ কোটি ৯৩ লাখ মার্কিন ডলার, জ্বালানি খাতে ২৩ কোটি ৮২ লাখ ডলার এবং টেলিকম খাতে ১৮ কোটি ০৯ লাখ ডলার এসেছে।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. এম ইসমাইল হোসেন বিনিয়োগ বোর্ডের পক্ষে ‘বিশ্ব বিনিয়োগ প্রতিবেদন’ প্রকাশ করেন।
তিনি জানান, সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ প্রতিবছরই বৃদ্ধি পাচ্ছে। ২০০৯ সালে ৭০ কোটি ডলারের বিদেশি বিনিয়োগ দেশে এসেছিল। ২০১০ সালে আসে ৯১ কোটি ৩৩ লাখ ডলার।

বিশ্ব বিনিয়োগ প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১১ সালে সবচেয়ে বেশি বিনিয়োগ এসেছে মিশর থেকে, ১৫ কোটি ২৩ লাখ ডলার। এরপর আছে যুক্তরাষ্ট্র, নেদারল্যান্ডস, যুক্তরাজ্য, দক্ষিণ কোরিয়া, হংকং, অষ্ট্রেলিয়া, পাকিস্তান, জাপান ও ভারত।

তবে টেলিকম খাতে ২০১০ সালের তুলনায় বিদেশি বিনিয়োগ কমেছে। ওই বছর ৩৫ কোটি ৯৮ লাখ ডলার আসলেও ২০১১ সালে এসেছে ১৮ কোটি ৯ লাখ ডলার।
বৃহস্পতিবার সারা বিশ্বে একযোগে প্রকাশিত এই প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১১ সালে সরাবিশ্বেই বিদেশি বিনিয়োগ বেড়েছে, যার পরিমাণ ১ দশমিক ৫ ট্রিলিয়ন ডলার। ২০১০ সালে এই পরিমাণ এক দশমিক ২৪ ট্রিলিয়ন ডলার ছিল।

প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি বিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী প্রতিবেদন প্রকাশ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।