অনলাইনে এক মাসে চার লাখ টাকা কর পরিশোধ

অনলাইনে কর পরিশোধ-পদ্ধতির প্রথম এক মাসে চার লাখ ৬৮০ টাকা সরকারি কোষাগারে জমা পড়েছে। শতাধিক করদাতা গত এক মাসে অগ্রিম কর হিসাবে এই অর্থ পরিশোধ করেছেন।
তবে বেশ কয়েকজন করদাতা অগ্রিম কর হিসাবে মাত্র এক টাকাও অনলাইনে জমা দিয়েছেন। মূলত পরীক্ষামূলক জমা হিসাবে এই অর্থ পরিশোধ করেছেন সংশ্লিষ্ট করদাতারা। 
গত এক মাসে একজন করদাতা অনলাইনে সর্বোচ্চ দুই লাখ টাকা পরিশোধ করেছেন। কেউ ৫০ হাজার, কেউ ৩০ হাজার, কেউবা ২০ হাজার টাকা করে জমা দিয়েছেন। তবে বেশির ভাগই ২৫০ থেকে এক হাজার টাকা জমা দিয়েছেন।


প্রতিদিন গড়ে আট থেকে ১০ জন করদাতা অনলাইনে অগ্রিম আয়কর পরিশোধ করছেন। 
অন্যদিকে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসে অনলাইনে শুল্ক-করাদি পরিশোধের ব্যবস্থা চালু থাকলেও খুব বেশি সাড়া পাওয়া যায়নি। ডেবিট কার্ড, ক্রেডিট কার্ড কিংবা সোনালী ব্যাংকের প্রিপেইড কার্ডের মাধ্যমে অনলাইনে শুল্ক-করাদি পরিশোধ করা যায়। কিন্তু আরোপিত শুল্ক-করাদির পরিমাণ বেশি হওয়ায় কার্ডের মাধ্যমে এত অর্থ পরিশোধ করা সম্ভব হচ্ছে না। কেননা, বিপুল পরিমাণ অর্থ এসব কার্ডের ধারণক্ষমতার বাইরে। তাই অনলাইনে পরিশোধ সম্ভব হয় না। 
এসব সমস্যা সমাধানে কাল শনিবার চট্টগ্রাম বন্দরের সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টের সঙ্গে বৈঠক করবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড।
অন্যদিকে ঢাকা দক্ষিণ কমিশনারেটে (মূসক ও এক্সাইজ) একইভাবে অনলাইনে কর পরিশোধের ব্যবস্থা রয়েছে। কিন্তু এই কমিশনারেটেও আশানুরূপ সাড়া পাওয়া যায়নি। 
অনলাইনে কর পরিশোধ: ব্যাংক হিসাব না থাকলেও অনলাইনে কর পরিশোধ করা যায়। সোনালী ব্যাংকের প্রিপেইড কার্ডের মাধ্যমে কর পরিশোধ করা যাবে। এ জন্য করদাতাকে সোনালী ব্যাংকের প্রিপেইড কার্ড গ্রহণ করতে হবে। নিজের প্রয়োজনমতো শুধু অর্থ ভরলেই হবে। এই কার্ড নিলে প্রথম পাঁচ বছর কোনো সেবা-মাশুল দিতে হবে না। 
আগামী সপ্তাহ থেকে রাজধানী ঢাকা ও চট্টগ্রামের ১০০টি সোনালী ব্যাংকের শাখায় এই প্রিপেইড কার্ড পাওয়া যাবে। আর এর পাশাপাশি দ্রুত অর্থ ভরার জন্য পয়েন্ট অব সেল (পিওএস) মেশিন বসানোর উদ্যোগ নিয়েছে সোনালী ব্যাংক। 
এনবিআরের ই-গভর্ন্যান্স ফোকাল পয়েন্ট কর্মকর্তা ও কর পরিদর্শন পরিদপ্তরের মহাপরিচালক কানন কুমার রায় প্রথম আলোকে জানান, যেকোনো পদ্ধতি প্রথম দিকে করদাতাদের অভ্যস্ত হতে কিছুটা সময় লাগবে। এ ছাড়া অনেক করদাতা এখন পরীক্ষামূলকভাবে কিছু অর্থ অনলাইনে পরিশোধ করছেন। যখন এই পদ্ধতির সহজ প্রয়োগ সম্পর্কে অভ্যস্ত হয়ে যাবে, তখন ব্যবহারকারী করদাতার সংখ্যা অনেক বেড়ে যাবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। 
করদাতাদের হয়রানিসহ ঝক্কিঝামেলা কমাতে গত ২৬ মে থেকে অনলাইনে কর পরিশোধের ব্যবস্থা চালু করেছে এনবিআর। আয়কর, মূল্য সংযোজন কর ও কাস্টমস-সংক্রান্ত যাবতীয় কর পরিশোধ করা যাবে। অনলাইনে কর পরিশোধের চালানের কপি বার্ষিক রিটার্নের সঙ্গে জমা দিতে হবে। এই পদ্ধতিতে সমন্বয়কের ভূমিকায় থাকবে এনবিআর, বাংলাদেশ ব্যাংক, সোনালী ব্যাংক এবং মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় (ওসিএজি)। অনলাইনে কর পরিশোধ-পদ্ধতিতে অর্থ ক্রেতার হিসাব থেকে রাজস্ব কোষাগারে জমা দিতে পদ্ধতিগত বা ‘প্রসেসরের’ কাজ করছে কিউ-ক্যাশ। 
এখন পর্যন্ত ২৬টি ব্যাংক কিউ-ক্যাশ নেটওয়ার্কের সঙ্গে সংযুক্ত রয়েছে। এসব ব্যাংকের ডেবিট ও ক্রেডিট কার্ডধারীরাই আপাতত অনলাইনে কর পরিশোধের সুবিধা নিতে পারবেন। ব্যাংকগুলো হলো: বেসিক ব্যাংক, ব্যাংক এশিয়া, কমার্স ব্যাংক, ইস্টার্ন ব্যাংক, আইএফআইসি ব্যাংক, আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, যমুনা ব্যাংক, মার্কেন্টাইল ব্যাংক, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক, ন্যাশনাল ব্যাংক, এনসিসি ব্যাংক, পূবালী ব্যাংক, শাহজালাল ব্যাংক, সোনালী ব্যাংক, সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক, স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়া, সিটি ব্যাংক, ট্রাস্ট ব্যাংক, উত্তরা ব্যাংক, এক্সিম ব্যাংক, ঢাকা ব্যাংক, সাউথইস্ট ব্যাংক, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক অব সিলন ও ব্র্যাক ব্যাংক।
Prothom alo logo