রিও+২০ সম্মেলন- প্রথম প্ল্যানারিতে সভাপতিত্ব করল বাংলাদেশ।

ব্রাজিলের পর্যটন নগরী রিও ডি জেনিরোতে পরিবেশ সংরক্ষণের মাধ্যমে বিশ্ব থেকে দারিদ্র্য নির্মূলের লক্ষ্য নিয়ে ২০ জুন বুধবার সকালে আনুষ্ঠানিকভাবে তিনদিনের ধরিত্রী সম্মেলন শুরু হয়েছে। বাংলাদেশ রিও কনফারেন্সের শুরুতেই ভাইস চেয়ার মনোনীত হয়েছিল। সেই সুবাদে গতকাল হাইলেভেল সেগমেন্ট শুরুর দিনে বাংলাদেশের পক্ষে প্ল্যানারিতে সভাপতির আসনে ছিলেন বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের নেতা পরিবেশ ও বনমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। এ সময় ড. হাছান মাহমুদ বলেন, আগামী প্রজšে§র জন্য একটি বাসযোগ্য পৃথিবী রেখে যেতে টেকসই উন্নয়নের বিকল্প নেই। তাই ভবিষ্যৎ পৃথিবীর জন্য একটি বাসযোগ্য অবকাঠামো সৃষ্টির লক্ষ্যে এ সম্মেলন একটি মাইলফলক হিসেবে বিবেচিত হবে।

বুধবার দিনের শুরুতে জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন সম্মেলনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। উদ্বোধন করতে গিয়ে তিনি বিশ্ব নেতৃবৃন্দের উদ্দেশে ধরিত্রীকে বাঁচানোর অগ্রগতি আরও এগিয়ে নেওয়ার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, বিশ্ববাসী এখন অপেক্ষায় আছে বিশ্ব নেতৃবৃন্দের কথাকে কাজে পরিণত হওয়া দেখতে। বান কি মুন বলেন, ভবিষ্যৎ প্রজšে§র জন্য একটি সুন্দর পৃথিবী রেখে যেতে আমাদের হাতে মাত্র ৭২ ঘণ্টা সময় আছে। এরই মধ্যে আমাদের সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

সম্মেলনে খসড়া ঘোষণা প্রসঙ্গে বান কি মুন বলেন, আমাদের পদক্ষেপ এখনও বিশ্বের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করার মতো যথেষ্ট নয়। কিন্তু মনে রাখতে হবে, প্রকৃতি কারও জন্য অপেক্ষা করে না। প্রকৃতি তার পদক্ষেপ নেওয়ার আগে কারও সঙ্গে আলোচনাও করে না। প্রথা অনুযায়ী, ব্রাজিল এ সম্মেলনের চেয়ারপারসন নির্বাচিত হয়েছে। দুপুরে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট ডিলমা রউসেফ বৃষ্টিøাত নগরীতে বিশ্ব নেতৃবৃন্দকে স্বাগত জানান। তিনি সম্মেলনের অগ্রগতি সম্পর্কে কথা বলেন। তিনি বলেন, টেকসই উন্নয়নের সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য অর্জনে আমাদের অনেক দূর এগিয়ে যেতে হবে।