প্রতি বছর কাউনিয়ায় বাড়ছে পাটের আবাদ

পাট এমন একটি ফসল যার সব কিছুই মানুষের দৈনন্দিন কাজে লাগে অবশিষ্ঠ বলে কিছুই থাকেনা। দাম না পাওয়ায় পাট বাংলাদেশের অর্থকারী ফসল হলেও মাঝখানে কয়েক বছর কৃষকরা দাম না পাওয়ায় পাটের আবাদ অনেকটা ছেড়ে দিয়েছিলো। কিন্তু কৃষকরা আবার সেই মূল্য ফিরে পেয়ে পাট চাষের দিকে ঝুকে পড়ছে রংপুরের কাউনিয়া উপজেলার কৃষকরা।
গত মৌসুমে প্রতিমন পাটের দাম ছিলো ২ হাজার থেকে আড়াই হাজার টাকা পর্যন্ত। বর্তমান আবার দাম কমে যাওয়ায় বড় ব্যবসায়ীরা অনেকটা লোকসানে পড়েছে তাই এ মৌসুমে পাট ক্রয় করবেন কিনা তার কোন নিশ্চয়তা নাই। উপজেলার নিজপাড়া গ্রামের আবীর, ফুয়াদ, যোগেষ চন্দ্র, হাবিবুর রহমানসহ বিভিন্ন এলাকার কৃষকদের সাথে কথা বলে জানাযায় তারা গত ৪-৫ বছর পাট আবাদ করেছিলেন নিজের জ্বালানী কাজের ব্যবহারের জন্য। গত বছর পাটের ভালো দাম পেয়ে আবারো তারা বাণিজ্যিক ভাবে বেশী জমিতে পাট চাষ করছেন। কৃষকরা আরো জানান বাংলাদেশের বিভিন্ন পাট কল গুলো যদি নতুন করে চালু করা হয়  আর পাটকল মালিকরা পাট ক্রয় করেন তাহলে কৃষকরা পাটের ন্যায্য মূল্য পাবে এবং পাটের সেই পুরানো ঐতিহ্য ফিরে আসবে।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানাগেছে,গত বছরের চেয়ে এবছর পাটের আবাদ বৃদ্ধি পেয়েছে প্রায় দুইশত হেক্টর বেশি জমিতে। এ বছর উপজেলায় পাট চাষের লক্ষ্যমাত্র নির্ধারন করা হয়েছিলো ১ হাজার ৮৫০ হেক্টর জমিতে আর আবাদ হয়েছে ২ হাজার ৬০ হেক্টর জমি। কৃষকরা যদি সঠিক মূল্য পায় তাহলে আগামীতে আরো বেশি জমিতে পাট চাষ হবে বলে তারা আশা প্রকাশ করেন।

২৭ মে ২০১২