৫ হাজার ৭শ ৩৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ৭১টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ

৫ হাজার ৭শ ৩৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ৭১টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ। সরকারি প্রতিশ্রুতি কমিটির বৈঠকে এ তথ্য জানানো হয়েছে। কমিটি অর্থের যথাযথ ব্যবহার এবং প্রকল্প বাস্তবায়নে মনিটরিং ব্যবস্থা জোরদার করার তাগিদ দিয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত কমিটির বৈঠকে আরো জানানো হয়, ২০১৮ এর জুলাই মাস পর্যন্ত ব্যয় হয়েছে মোট ১৩.১৪ কোটি টাকা অর্থাৎ ২০১৮-১৯ অর্থবছরে জুলাই, ২০১৮ পর্যন্ত আর্থিক অগ্রগতি ০.২৩% ও এডিপি বাস্তবায়নের জাতীয় গড় অগ্রগতি ০.৫৭% অর্থাৎ জাতীয় অগ্রগতির তুলনায় এ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক অগ্রগতি ০.৩৪% কম। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের আওতায় ১০টি প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন আছে। এই ১০টি প্রকল্পে মোট বরাদ্দ ৭৭৩.৭৮ কোটি টাকা। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে জুলাই, ২০১৮ পর্যন্ত কোন অর্থব্যয় হয়নি।

দেশের মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সকল ছাত্রীকে উপবৃত্তির আওতায় আনার লক্ষ্যে সেকেন্ডারি এডুকেশন ষ্টাইপেন্ড প্রজেক্টের মাধ্যমে ১০% ছাত্র এবং ৩০% ছাত্রীকে উপবৃত্তি প্রদান করা হচ্ছে। সেকেন্ডারি এডুকেশন সেক্টর ইনভেস্টমেন্ট প্রোগ্রামের আওতায় ও একই হারে উপবৃত্তি প্রদান করা হচ্ছে। বেকার যুবকদের কর্মসংস্থান নিশ্চিত করার জন্য প্রতিটি উপজেলায় আনুপাতিক হারে কারিগরি বিদ্যালয় স্থাপন প্রকল্প গ্রহনের সুপারিশ করা হয়।

স্কুল কলেজের নতুন ভবন নির্মাণে প্রকল্প গ্রহণের পূর্বে অবশ্যই সঠিক ও সুদূর প্রসারী পরিকল্পনা গ্রহণ করে প্রকল্প পাশ করার পরামর্শ দেয়া হয় যাতে ভবিষ্যতে নতুন প্রকল্প গ্রহণ করতে না হয় এবং প্রকল্প ব্যয় বৃদ্ধি না পায়। স্কুল কলেজের অবকাঠামোগত উন্নয়ন কাজের দিকে আরো বেশি গুরুত্ব প্রদান এবং অবকাঠোমো উন্নয়নে যে সব প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে তা অতিদ্রুত শুরু করার সুপারিশ করা হয়। উচ্চশিক্ষা এবং গবেষণা খাতে সরকারের আর্থিক বরাদ্দ বৃদ্ধি পাওয়ায় গবেষণা কাজে ছাত্র/ছাত্রদেরকে আকৃষ্ট করতে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহনে বিশ^বিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনকে ভুমিকা পালনের পরামর্শ দেয়া হয়।

কমিটির সভাপতি মো. আব্দুস শহীদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে কমিটির সদস্য আলহাজ¦ এডভোকেট মো. রহমত আলী, মো. আব্দুল মজিদ খান এবং মীর মোস্তাক আহমেদ রবি অংশগ্রহণ করেন। মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব, কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগের সচিবসহ মন্ত্রণালয় ও জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সম্পাদনা: মোহাম্মদ রকিব হোসেন